TrickBlogBD.com

Gain and Give knowledge

SEO tricks and tutorials Webmaster Tricks Wordpress

ওয়েবসাইট ও ব্লগে ফ্রি ভিজিটর কিভাবে নিতে হয়? গোপন ট্রিক

ওয়েবসাইট ও ব্লগে ফ্রি ভিজিটর নেওয়ার সবচেয়ে ভালো উপায় হলো এসইও করা। আপনার ওয়েবসাইট ও ব্লগে ফ্রি ভিজিটর নিয়ে এটিকে খুব দ্রুত জনপ্রিয় করে তুলতে পারেন। এই ভিজিটরের জন্য আপনাকে কোন টাকা দিতে হবেনা। তাছাড়া এই ভিজিটর থেকে আয়ও করতে পারবেন। আজকের পর আপনাকে আর ফ্রি ভিজিটরের জন্য অন্য কোন পোস্ট খুঁজতে হবেনা।

ওয়েবসাইট ও ব্লগে ফ্রি ভিজিটর
ওয়েবসাইট ও ব্লগে ফ্রি ভিজিটর

ব্লগে ফ্রি ভিজিটর

গুগল বা যেকোন সার্চ ইঞ্জিনের সার্চ রেজাল্টের প্রথম পেজে আসতে পারলে আপনি সাইটে অনেক ভিজিটর পাবেন। ওয়েবসাইটে এসইও করলে আপনি সহজেই গুগলের প্রথম পেজে চলে আসবেন। আর শুধু দুই এক নয় আজীবন ফ্রি ভিজিটর পাবেন।

Advertisements

আপনার নতুন ব্লগ খুব সহজেই জনপ্রিয় হয়ে উঠবে। আর তাই এসইও খুব প্রয়োজনীয়। আর এটি ১০০% কাজ করে। আজ না কাজ করলে কাল ঠিকই কাজ করবে। আজকে আপনাদেরকে আমার জানা কিছু গোপন ট্রিক শিখাবো। তাই সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ুন

কেন সাইটে এসইও করবেন?

এসইও (SEO) মানে হচ্ছে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন। অর্থাৎ ওয়েবসাইট বা ব্লগকে সার্চ ইঞ্জিন যাতে সহজেই বুঝতে পারে সেই ব্যবস্থা করা। এজন্য কয়েকটি বিষয় খেয়াল রাখতে হয়।

এসইও দুই প্রকার। ১. অন পেজ এসইও এবং ২. অফ পেজ এসইও

অন পেজ এসইও করে ফ্রি ভিজিটর

আপনি ওয়েবসাইটে যা যা অপটিমাইজ করবেন তাই অন পেজ এসইও। পোস্ট লিখা, ডিজাইন করা ইত্যাদি হচ্ছে অন পেজ এসইও।

Advertisement

এসইও ফ্রেন্ডলি ওয়েবসাইট ডিজাইন

আপনাকে প্রথমেই ওয়েবসাইটের জন্য ভালো একটি ডিজাইন করতে হবে। যাতে ইউজাররা সহজেই নেভিগেট করতে অয়ারে। যেন সাইট ভিজিট করতে তাদের কোন কষ্ট করতে না হয়।

সাইট স্পীড ও গুগল র‍্যাংকিং

সাইট স্পীড গুগল র‍্যাংকিংয়ের জন্য খুবই বড় একটি ফেক্টর। এটা আমি নিজে উপলব্ধি করেছি। সাইটের স্পীড ভালো থাকলে সার্চ রেজাল্টের দুই নম্বর অএজের পোস্টও কয়েকদিনেই প্রথম পেজে চলে আসে।

তাই ওয়েবসাইট বা ব্লগ এমনভাবে ডিজাইন করতে হবে যাতে সাইট ভিজিট করতে কম সময় লাগে। এছাড়া সাইটের লোডিং স্পীড কমাতে গুগল এএমপি (AMP) ভার্সন ব্যবহার করতে পারেন। এজন্য যেকোন একটি AMP প্লাগিন ইন্সটল করে নিন

গুগল AMP (Accelerated Mobile Page) ভার্সন ব্যবহার করলে আপনার সার্চ র‍্যাংকিং ১০০% উন্নতি হবে। আমি নিজে এটার সাক্ষী। তাই এটা ব্যবহার করুন। ওয়েবসাইটে ফ্রি ভিজিটর পাবেন।

এসইও ফ্রেন্ডলি পোস্ট লিখার কৌশল

সাইটের প্রত্যেকটি পোস্ট অবশ্যই এসইও ফ্রেন্ডলি হতে হবে। এটার কোন বিকল্প নেই। ফ্রি ভিজিটর পাওয়ার সবচেয়ে ভালো ও গুরুত্বপূর্ণ উপায় হচ্ছে সাইটে এসইও ফ্রেন্ডলি পোস্ট করা

এসইও ফ্রেন্ডলি ব্লগ পোস্ট কিভাবে লিখতে হয় সেটা আমি আগেই একটি পোস্টে জানিয়েছি। সেটি দেখে নিন। তবে এখানে আমি কিছু গোপন কথা বলব যেটা ঐ পোস্টে বলা হয়নি।

Advertisements

কমপক্ষে ১০০০ শব্দের পোস্ট লিখুন

গুগল র‍্যাংকিংয়ে প্রথম পাতায় থাকতে হলে আপনার সাইটে বেশি তথ্য থাকতে হবে। তাই বেশি শব্দে পোস্ট বা আর্টিকেল লিখলে খুব সহজেই গুগল সার্চের প্রথমে আসা যায়।

তাই কমপক্ষে ১০০০ শব্দের পোস্ট লিখতেই হবে। তা না হলে সার্চ রেজাল্টে আসা আপনার জন্য খুবই কঠিন হয়ে যাবে।

পোস্ট টাইপ করা
পোস্ট টাইপ করা

তবে আমি বলব ২০০০-৫০০০ শব্দের পোস্ট হলে ধরে নেওয়াই যায় আপনি প্রথম ৫ টি সার্চ রেজাল্টের একটি হবেন। এমনকি আপনি হয়তো সার্চ রেজাল্টে প্রথমে থাকবেন। তাই ব্লগে ফ্রি ভিজিটর নিতে হলে এটি অবশ্যই মেনে চলুন।

লিংকিং করুন ফ্রি ভিজিটর বাড়ান

গুগল সার্চে আসার জন্য লিংকিং খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আমি লিংকিং করে খুবই উপকৃত হয়েছি। লিংকিং দুই প্রকার। ১. ইনবাউন্ড লিংকিং ২. আউটবাউন্ড লিংকিং

আপনার কোন পোস্ট যদি আজকে গুগলের প্রথম পেজে না থাকে, যদি আপনি সাইটে যথেষ্ট লিংকিং করে থাকেন একদিন না একদিন আপনি প্রথম পেজে ঠিকই চলে আসবেন।

লিংক করা মানে আপনার সাইটের বা অন্য সাইটের কোন পোস্টকে আপনার পোস্টের সাথে লিংক করা। যেমনঃ আমার এই পোস্টে অনেকগুলো লিংক দেওয়া আছে।

ইনবাউন্ড লিংকিং

ইনবাউন্ড বা ইন্টার্নাল লিংকিং হচ্ছে আপনার সাইটের কোন পোস্ট কে লিংক করা। অর্থাৎ আপনার বর্তমান পোস্টের সাথে আগেই কোন পোস্টকে লিংক করাই হচ্ছে ইনবাউন্ড লিংকিং।

আউটবাউন্ড লিংকিং

আপনার পোস্টের সাথে সম্পর্কিত অন্য ওয়েবসাইটের কোন পোস্টকে আপনার পোস্টে লিংক করাই হচ্ছে আউটবাউন্ড লিংকিং ।

লিংকিং করলে কি হয়?

লিংকিং করলে অনেক কিছুই হয় যা আপনি জানেন না। এই পোস্ট লিখা পর্যন্ত আমাদের ট্রিক ব্লগ বিডির ৮১% ভিজিটর সার্চ ভিজিটর। তারা গুগলে সার্চ করে আমাদের খুঁজে পায়। আর তার পিছনে লিংকিং খুব বড় ভূমিকা রাখে।

কোন ভিজিটর যখন সার্চ করে আপনার সাইটে আসে তখন সে ভালো কিছু পেলে আপনার লেখাটি পড়বে। কিন্তু লেখা ভালো না হয়ে ব্যাক দিয়ে চলে যাবে। এখানে আসলে অনেক কিছু হয়ে যায়।

Advertisements

ভিজিটর যদি সাইটে বা ব্লগে বেশিক্ষণ থাকে তখন গুগল বুঝে ফেলে লেখাটি খুব ভালো। তাই সে আপনাকে সার্চ র‍্যাংকিংয়ে এগিয়ে দেয়। আর ভিজিটর যদি ব্যাক বেরিয়ে যায় তাহলে গুগল আপনাকে র‍্যাংকিংয়ে নিচে নামিয়ে দেয়।

অবশ্যই পড়ুনঃ অনলাইনে ইনকাম করার ১০ টি গোপন ট্রিক

লিংক থাকলে ভিজিটর ব্যাক দিয়ে সার্চ ইঞ্জিন বা গুগলে ফিরে যাওয়ার চান্স কম থাকে। ভিজিটর যদি কোন লিংকে ক্লিক করে গুগল সেটিকে এনগেজমেন্ট হিসেবে ধরে। গুগলে ধরে ভিজিটর তার প্রয়োজনীয় কিছু আপনার সাউটে পেয়েছে। তাই সে আপনাকে র‍্যাংকিংয়ে উপরে উঠিয়ে দেয়।

ইনবাউন্ড লিংক করলে আপনার ভিজিটর আপনার সাইটেরই অন্য আরেকটি পোস্ট পড়তে পারে। অথবা পড়ার সম্ভাবনা বাড়ে। এতে আপনার পেজ ভিউজ বেড়ে যাবে। যা আপনার আয় আরো বাড়িয়ে দিবে।

তাছাড়া আউটবাউন্ড লিংক করলে গুগল বুঝে নেয় আপনি খুব এনালাইসিস করে পোস্টটি লিখেছেন। এটি অবশ্যই ভালো পোস্ট। তাই এটি র‍্যাংকিং দিতে গুগল দ্বিধা করেনা। তাই অবশ্যই ইনবাউন্ড ও আউটবাউন্ড লিংকিং করুন।

Free traffic
Free traffic

অফ পেজ এসইও করে ফ্রি ভিজিটর

অফ পেজ এসইও এর কথা বলতে গেলেই বলতে হয় ব্যাকলিংক এর কথা। ব্যাকলিংক আপনার পোস্টকে গুগল সার্চ এ প্রথম আসতে বড় ভূমিকা রাখে।

আমি ট্রিক ব্লগ বিডিতে ব্যাকলিংক লিয়ে বিস্তারিত একটি পোস্ট লিখেছি। সেখানে ব্যাকলিংক কি কাজ করে? কেনো দরকার? কিভাবে ব্যাকলিংক তৈরি করতে হয় ইত্যাদি নিয়ে আলোচনা করেছি। ব্যাকলিংক সম্পর্কিত সেই পোস্টটি পড়তে এখানে ক্লিক করুন

গুগল সাজেশন মেনে চলুন

গুগলে সার্চ করলে নিচে কিছু সাজেশন দেখায়। এটার মানে হচ্ছে আরো অনেক লোক আছে যারা এইসব লেখা লিখে গুগলে সার্চ করে। তাই আপনি চেষ্টা করবেন পোস্ট রেলেটেড সেইসব টপিক নিয়ে আপনার পোস্টে লিখার চেষ্টা করবেন।

গুগল সার্চ সাজেশন
গুগল সার্চ সাজেশন

তাহলে মানুষ যেহেতু ঐসব বিষয়ে সার্চ করে তাহলে আপনার পোস্টও সার্চ রেজাল্টে থাকবে। আর আপনি ফ্রীতে গুগল থেকে খুব সহজেই ভিজিটর পেয়ে যাবেন।

উপরের নিয়মগুলো মেনে চললে আপনি অবশ্যই গুগলে প্রথম পেজে চলে আসবেন। আর ওয়েবসাইট ও ব্লগে ফ্রি ভিজিটর পাবেন।

এই পোস্ট সম্পর্কে আপনার কোনো মন্তব্য, পরামর্শ বা অভিযোগ থাকলে নিছে কমেন্ট করুন। আমরা প্রত্যেকটা কমেন্টের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করি।

সকল আপডেট সবার আগে পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন ও টুইটারে ফলো করুন

ট্রিক ব্লগ বিডি
Advertisement

18 COMMENTS

    • সুন্দর মতামতের জন্য আপনাকেও ধন্যবাদ। আপনার উৎসাহমূলক মন্তব্য আমাদের পরবর্তী কাজের অনুপ্রেরণা যোগাবে।

  1. ধন্যবাদ এত সুন্দর পোস্ট করার জন্য!অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ন বিষয় আলোচনা করেছেন ধন্যবাদ আপনাদে!

    • সুন্দর মন্তব্য করে আমাদের উৎসাহিত করার জন্য আপনাকেও ধন্যবাদ। আশা করি সাথেই থাকবেন।

  2. আপনার পোষ্ট পড়ে উৎসাহ পাই কিন্তু তারপরেও মনে হয় এটা এত সহজ কাজ নয় । আমার ব্লগ সাইট সব সময় গুগুলের ফাষ্ট পেজে আছে তারপরেও ভিজিটর তেমন দেখি না। খুব সামান্য । আসলেই কি প্রতিদিন 500 ভিজিটর আসা সন্ভব। বিস্তারিত জানালে খুব খুশি হব।

    • অবশ্যই ৫০০ এর অধিক ভিজিটর পাওয়া সম্ভব। গত ২৯/০৯/২০১৯ তারিখে আমি ৮০০ জন সার্চ ভিজিটর পেয়েছি।

      Organic search over time on 29th September 2019

      এদিন আমার মোট ভিজিটর ছিল ১০৭৯ জন। আমার সাইট তো নতুন। এক-দুই বছর পর দেখবেন প্রতিদিন ২-৩ হাজার বা তার বেশি সার্চ ভিজিটর হবে।

      User over time on 29th September 2019

      আপনার সাইট র‍্যাংকে থাকলেই হবেনা। আপনি যেই পোস্ট লিখে সার্চে আসছেন সেই বিষয়টা নিয়ে মানুষ কতটুকু সার্চ করে সেটাও দেখার বিষয়। মানুষ কম সার্চ করলে ভিজিটরও কম পাবেন।

      তাছাড়া, সার্চ কম হলে প্রথম পেজে থাকলেও খুব একটা ভিজিটর পাওয়া যায়না। তাই সার্চ রেজাল্টে ১ নম্বরে থাকার চেষ্টা করতে হবে।

      কারণ, ১০০ জন মানুষ কোনো একটা কিছু সার্চ করলে তার ৫০+ জনই ১ নম্বরে থাকা পোস্টেই ক্লিক করে। ২ নম্বরে ২০-৩০+ জন ক্লিক করে। আর বাকিরা নিচের লিংকে।

      তাই সার্চ রেজাল্টে ১ নম্বরে থাকলে সবচেয়ে বেশি ভিজিটর পাবেন। আর যেই বিষয়গুলো নিয়ে মানুষ অনেক বেশি সার্চ করে সেগুলো নিয়ে লিখার চেষ্টা করুন।

  3. ধন্যবাদ আপনাকে,অনেক গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য জানা হলো। ব্লগের ভিজিটর কম আসতো বিধায় নিজের কাছেও খারাপ লাগতো,আপনার এই পোস্টের তথ্যগুলো মেনে কাজ করলে আশাকরি ভিজিটর সংখ্যা আগের তুলনায় অনেক বাড়বে।

    • আমার মনে হয় পোস্টটি পড়ে আপনার কাছে ভালো লেগেছে। এটা দেখে আমার কাছেও ভালো লাগলো।

      ভবিষ্যতেও আমাদের পোস্টগুলো সম্পর্কে আপনার মতামত চাই। ভুল হলেও ধরিয়ে দিবেন বলে আশা করি।

      সবশেষে, মন্তব্য করে আমাদের উৎসাহিত করার জন্য ধন্যবাদ।

  4. পোস্ট এ যখন অউটবন্ড লিঙ্ক দেবো সেগুলো কি নো ফলো লিঙ্ক দেবো নাকি du-ফলো লিঙ্ক দেবো,
    আর ইনবন্ড ওর আউট বন্ড লিঙ্ক open in new page দেবো নাকি সেম পেজ রাখবো, উত্তরের অপেক্ষায় রইলাম ধন্যবাদ |

    • ভাই, পোস্টের সাথে সম্পর্কিত লিংকগুলোকে ডুফলো লিংক দিন। আর সবচেয়ে কম মিল আছে এমন লিংকগুলোকে নোফলো দিন।

      আমি প্রায় সবগুলো লিংকই ডু ফলো দেই। যেহেতু আমি প্রাসঙ্গিক পোস্টগুলোকেই লিংক দেই।

      আর, open in new tab এটা যেভাবে দেন আপনার খুশি। এক্ষেত্রে এসইও তে কোনো সমস্যা নেই।

      আপনার প্রয়োজন মতো এটা ব্যবহার করুন। আমি নিজের বেশিরভাগ সময় open in new tab এ লিংকগুলো দেই।

      আপনি আপনার খুশি মতো দিতে পারেন।

  5. ধন্যবাদ দাদা,
    ধরুন আমি পোস্ট লিখলাম সেখানে সোর্স ব্লগ এর লিঙ্ক দিলাম আবার লিঙ্ক টিকে (মানে যেটা সোর্স ব্লগ ) সেটাকে দরকার ফলো দেবো কি নো ফলো?
    আর এই দরকার ফলো বা নো ফলো তে কি seo তে পার্থক্য হয়?
    আমি নিউ ব্লগ করছি ব্লগ এ পোস্ট লেখা পাবলিশ করার পর এডিট করলে কি গুগল লোক পাঠানো বন্ধ করে দেয়?
    Actualy আমি খুব ঘেটে আছি অনেক পোস্ট এডিট করতে হয়েছে পাবলিশ এর পর ই স্পেলিং মিসটেক ছিলো, but রিপাব্লিশ করার পর কোনো ভিসিটর পাচ্ছি না |
    একটু আমার ব্লগ টি দেখে জানাবেন pls|

    • ডুফলো ও নোফলো লিংকে এসইও তে ভূমিকা রাখে। আপনি যখন একটা পোস্ট লিখেন রিলেটেড সেখানে পোস্টগুলোকে ডুফলো দিন।

      তাহলে গুগল আপনার সাইটের টপিক সম্পর্কে ভালো ধারণা পাবে। কারণ, নোফলো দিলে গুগল ঐ লিংকে যায়না।

      নো ফলো লিংক মানে হচ্ছে, এটা আপনার পোস্টে একটা লিংক। কিন্তু এটা পোস্টের সাথে সম্পর্ক নেই।

      যখন আপনি ডুফলো দিবেন তখন গুগল বুঝে যাবে এই পোস্টটার সাথে আপনার সাইটের পোস্টটির সম্পর্ক আছে। এটা আপনাকে ভালো র‍্যাংক পাওয়ার জন্য সাহায্য করবে।

      আর পোস্ট এডিট করা ভালো। কিন্তু হয়তো তাৎক্ষণিকভাবে র‍্যাংক ডাউন হয়। কিন্তু পরবর্তীতে আবার ভালো র‍্যাংকে আসে।

      এডিট করার সময় কিছু জিনিস মাথায় রাখবেন।

      এডিট করে কখনো পোস্টের শব্দ কমাবেন না। পোস্টের বানানগুলো ঠিক করুন। আর বাড়তি কিছু লাইন লিখুন।

      এমন কিছু বিষয় পোস্টে যোগ করবেন, যেগুলো গুগলে সার্চ হয়। সেজন্য আওনার সার্চ কনসোল থেকে কীওয়ার্ড বেছে নিতে পারেন।

      সার্চ কনসোলে আপনার পোস্ট কি লিখে সার্চ হয় ঐ কীওয়ার্ড সম্পর্কে একটু লিখে দিবেন। তাহলে এডিট করে আরো ভালো র‍্যাংক পাবেন।

      আশা করি, বুঝতে পেরেছেন। আরো কিছু জিজ্ঞেস করার থাকলে জিজ্ঞেস করতে পারেন। ভবিষ্যতে ইনশাআল্লাহ আমি সার্চ কনসোলের ব্যবহার নিয়ে একটি বিস্তারিত পোস্ট লিখবো।

      তাই সাথেই থাকুন।

      কমেন্ট করার জন্য ধন্যবাদ।

  6. আপনার উত্তরের জন্যে অশেষ ধ্যন্যবাদ দাদাভাই| আপনার পোস্ট এর অপেক্ষায় থাকবো সার্চ কনসোল এর এই ব্যবহার গুলি আমি বিশেষ জানিনা l আপনার সার্চ কনসোল পোস্ট টি এলে ভালো লাগবে I একটি কথা বলুন blogspot ব্লগ এ থিম চেঞ্জ কি রাঙ্ক ডাউন করে?

    আর হ্যা ডিলেট করা পেজ বা যেই সকল পেজ এর লিঙ্ক পরিবর্তন হয়েছে, সেই সকল পোস্ট এর পুরোনো লিঙ্ক গুগল এখনো দেখাচ্ছে আর লিঙ্ক পরিবর্তন এর পর গুগল আর ভিসিটর পাঠাচ্ছে না I এই ব্যাপারে কিছু বলুন, অপেক্ষায় রইলাম ধন্যবাদ I ভালো থাকবেন I

    • ১ম প্রশ্নের উত্তরঃ থিম চেঞ্জ করা এসইও এর জন্য কোনো সমস্যার বিষয় নয়। তবে হ্যাঁ, সাইটের লোডিং স্পীড এসইও ও সার্চ র‍্যাংকিংয়ের জন্য বড় একটি বিষয়।

      আপনি যদি এমন থিম বা টেমপ্লেট আপডেট দেন, যেটা সাইটের স্পীড স্লো করে দেয়, যেটাতে ইউজারদের নেভিগেশনের সুবিধা কমে যায়, তাহলে সেটা অবশ্যই এসইওতে প্রভাব ফেলবে। তাই এই বিষয়টা খেয়াল রাখবেন।

      ২য় প্রশ্নের উত্তরঃ কোনো পেজ ডিলিট করে দিলে সেটাতে কেনো ভিজিটর আসবে? আসবেনা। আপনি সেই পেজের বিকল্প একটি পেজ তৈরি করুন। অথবা সেই পেজের সাথে মিল আছে এমন একটি পেজ খুঁজে বের করুন।

      পেজটি তৈরি বা বিকল্প পেজ খুঁজে পেলে ডিলিট করা পেজ লিংককে ঐ পেজে রিডাইরেক্ট করে দিন। এক্ষেত্রে 301 রিডাইরেক্ট ব্যবহার করুন। এতে আপনার ব্যাকলিংকগুলো ও অর্থবহ হবে। আর তা আপনার এসইওতেও দারুণভাবে প্রভাব ফেলবে।

      তা না হলে আপনি র‍্যাংক হারাবেন।

      রিডাইরেক্ট করার জন্য pretty link বা Redirection প্লাগিন ব্যবহার করতে পারেন।

LEAVE A RESPONSE

Your email address will not be published. Required fields are marked *

হাবিবুর রহমান একজন কন্টেন্ট রাইটার। একই সাথে খুটিনাটি কিছু এসইও এর কাজ করেন। ট্রিক ব্লগ বিডিতে সিইও হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।