TrickBlogBD.com

Gain and Give knowledge

bKash

বিকাশ পিন রিসেট করার নিয়ম | Step by step

বিকাশ একাউন্ট নাই এমন মানুষ এখন খুঁজে পাওয়া যায়না। তাই বিকাশ একাউন্ট সম্পর্কিত সমস্যা প্রায় সবারই হয়। তেমনই একটি সমস্যা পিন লক। তাই বিকাশ পিন রিসেট করার নিয়ম ও টেকনিক জেনে নেওয়া খুবই জরুরি।

প্রায়ই একটি প্রশ্ন সবাই আমাদের করে। তা হলো, ভাই আমার বিকাশ পিন লক হয়ে গেছে। এখন কি করব?

আমাদের ওয়েবসাইটে এর আগে এই নিয়মটি সম্পর্কে লেখা হয়নি। তাই সবাইকে আলাদা আলাদাভাবে সমাধান দেওয়াও সম্ভব হচ্ছেনা। তাই আজকে বিকাশের পিন পরিবর্তন করার সকল পদ্ধতি আপনাদের সাথে শেয়ার করছি।

বিকাশ পিন রিসেট করার নিয়ম
বিকাশ পিন রিসেট করার নিয়ম

পিন (PIN) কি?

Personal Identification Number বা সংক্ষেপে পিন (PIN)। এটি কোনো সিস্টেম এক্সেস করার জন্য ব্যবহৃত হয়ে থাকে। যেমনঃ বিকাশ লেনদেন। যেহেতু মূল মালিক ছাড়া এই কোডটি কেউ জানেনা তাই এই পিন কোড আসল মালিককে সিস্টেমের এক্সেস দেয়।

ধরুণ, আপনার একটি বিকাশ একাউন্ট খোলা আছে। এখন সেখানে একটি পিন কোড সেট করেছেন। এখন এই পিন কোড শুধু আপনি জানেন। যখনই আপনি বিকাশ একাউন্ট দিয়ে সেন্ড মানি বা কোনো লেনদেন করবেন তখন এই পিন কোডের দরকার হবে।

এই পিন কোড দিয়েই বিকাশ আপনার মালিকানা নিশ্চিত হবে। আর অন্য কেউ চাইলেই আপনার একাউন্টের টাকা চুরি করতে পারবেনা।

PIN কোড মূলত যেকোনো একাউন্টের নিরাপত্তার জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে। যাতে অনাকাঙ্ক্ষিত কেউ সেই একাউন্ট ব্যবহার করতে না পারে।

পিন কোড লক হয় কেন?

বিকাশ একাউন্ট ব্যবহার করার সময় অনেক সময় বিকাশ একাউন্ট লক হয়ে যায়। এটা শুধু বিকাশেই নয়, বেশিরভাগ সিস্টেমেই এমনটি হয়ে থাকে। মূলত একাউন্টের নিরাপত্তার স্বার্থেই এমনটি করা হয়।

অনেকেই এই সিস্টেমে বিরক্ত হন। আসলে এখানে বিরক্ত হওয়ার কিছুই নেই। কারণ, এই সিস্টেম থাকার কারণেই আপনার টাকা এখনো নিরাপদে আছে। তা না হলে হ্যাকাররা অনেক আগেই টাকা চুরি করে নিতে পারতো।

মূলত, একাধিকবার ভুল পিন কোড দিয়ে লেনদেন করার চেষ্টা করলে পিন লক হয়ে যায়। কারণ, হ্যাকাররা এমনটি করে থাকে। বিকাশ সিস্টেম ধরে নেয় যে কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত ব্যক্তি বিনা অনুমতিতে লেনদেন করার চেষ্টা করছে। তখনই বিকাশের সিস্টেম ঐ গ্রাহকের একাউন্ট সাময়িক লক করে দেয়।

বিকাশ পিন রিসেট করার নিয়ম কানুন

দুইটি বিকাশ একাউন্টের পিন রিসেট করা যায়। ১. ইউএসএসডি (*247#) ডায়াল করে। ২. বিকাশ অ্যাপের মাধ্যমে। আজকে আমরা দুইটি পদ্ধতিতেই বিকাশ একাউন্টের পিন পরিবর্তন করার নিয়ম কানুন জানব।

*247# ডায়াল করে বিকাশ পিন রিসেট করার নিয়ম

১ম ধাপঃ

  • প্রথমে *247# ডায়াল করুন
  • পিন রিসেট করার জন্য Reset PIN অপশনটি সিলেক্ট করুন। এজন্য 9 লিখে Send করুন।
  • যার নামে একাউন্ট এনআইডি কার্ড, ড্রাইভিং লাইসেন্স অথবা পাসপোর্ট এর নাম্বার দিন
  • জন্ম সাল লিখে Send বাটনে ক্লিক করুন
  • সর্বশেষ ১০ টি ট্রান্সেকশনের মধ্যে যে কোনো একটি ট্রানজেকশন সিলেক্ট করুন
  • ট্রানজেকশন এর পরিমাণ লিখুন এবং সেন্ড এ ক্লিক করুন
  • প্রথম ধাপের কাজ শেষ

২য় ধাপঃ

১ম ধাপের কাজ শেষ করার পর আপনি মোবাইলে একটি নির্দেশনা মূলক এসএমএস পাবেন। সেখানে একটি অস্থায়ী পিন নম্বর পাবেন। এই *247# ডায়াল করে অথবা অ্যাপের মাধ্যমে নতুন পিন সেট করে নিন।

  • *247# ডায়াল করুন
  • My bKash অপশনের জন্য 1 লিখে Send করুন
  • Change your mobile menu pin এর জন্য 1 লিখে সেন্ড করুন
  • Old PIN এর জায়গায় sms এ পাওয়া পিক কোডটি দিন
  • Enter new pin অপশনে আপনার নতুন পিন দিন
  • Confirm new pin এর ঘরে নতুন পিনটি পুনরায় লিখুন ও Send বাটনে ক্লিক করুন
  • সবকিছু ঠিক থাকলে Successful নোটিফিকেশন ও sms পাবেন।

অ্যাপের মাধ্যমে বিকাশ পিন পরিবর্তন করার নিয়ম

অ্যাপ দিয়েও বিকাশ পিন রিসেট করা যায়। এই নিয়মটিও খুব সহজ। এজন্য নিচের পদ্ধতিটি অনুসরণ করুন।

বিকাশ অ্যাপ বাংলা ও ইংরেজি ভাষা সাপোর্ট করে। আমরা বাংলা ভার্সন হিসেবে নিয়মটি তুলে ধরলাম।

  • প্রথমে অ্যাপ ওপেন করুন
  • পিন ভুলে গিয়েছেন?” লেখায় ক্লিক করুন
  • এ পর্যায়ে স্ক্রিনে আপনার মোবাইল নম্বরটি দেখতে পাবেন। “পরবর্তী” লেখায় ক্লিক করুন।
  • আপনার মোবাইল অপারেটর বা সিম কোম্পানি সিলেক্ট করুন
  • মোবাইলে একটি OTP আসবে। কোনো Permission চাইলে allow দিয়ে দিন।
  • বিকাশ অ্যাপ OTP টি অটোমেটিকভাবে তুলে নিবে।
  • sms এ একটি অস্থায়ী পিন পাবেন। ঐ অস্থায়ী পিন কোডটি লিখুন। পরবর্তী ধাপে যান।
  • এই পর্যায়ে দুইটি ঘরে নতুন পিন কোড দিন (নতুন করে যেই পিনটি দিতে চান)
  • আপনার পিনটি সফলভাবে রিসেট হয়েছে।
  • Login পেজ থেকে নতুন পিন দিয়ে লগিন করে দেখুন।

শর্তাবলি ও বিশেষভাবে অনুসরণীয় বিষয়াবলি

  • পিন নম্বর অবশ্যই ৫ অংকের বা ডিজিটের হতে হবে
  • পিন নম্বরে শুধুমাত্র সংখ্যা ব্যবহার করতে হবে। কোনো অক্ষর গ্রহণযোগ্য নয়।
  • সর্বশেষ ব্যবহৃত ৩ টি পিন ব্যবহার করা যাবেনা। অর্থাৎ আপনার বিকাশ একাউন্টে সর্বশেষ যে ৩ টি পিন ব্যবহার করেছেন সেই ৩ টি পিন ব্যবহার করা যাবেনা।
  • একাউন্টের নিরাপত্তার স্বার্থে এক ঘণ্টার মধ্যে তিন বার ভুল পিন দিলে, বিকাশ পিন লক হয়ে যাবে
  • নতুন পিনের প্রথম অক্ষর শুন্য (0) দেওয়া যাবেনা
  • ৮ ঘন্টার মধ্যে সর্বোচ্চ ১ বার পিন পরিবর্তন করা যাবে। পুনরায় বিকাশ পিন রিসেট করতে হলে ৮ ঘন্টা পর চেষ্টা করতে হবে।
  • সহজেই অনুমান করা যায় এমন ধারাবাহিক এবং একই ডিজিটের নাম্বারগুলো পিন নাম্বার হিসেবে ব্যবহার করা যাবে না; যেমন 11111, 22222,  12345, 23456, 98765, 87654, 54321 ইত্যাদি

বিকাশ পিন লক হয়ে গেছে ; কি করব?

বিকাশ পিন লক হয়ে গেছে? এটি খুবই কমন সমস্যা। আগেই বলেছি, সিকিউরিটির জন্য এমনটি হয়ে থাকে। উপরের নিয়ম অনুসরণ করে আপনি নতুনভাবে পিন রিসেট করতে পারবেন।

আশা করি, বিকাশ পিন রিসেট করার নিয়ম ও টেকনিক বুঝতে পেরেছেন। এখন আপনিও খুব সহজেই বিকাশ একাউন্টের পিন পরিবর্তন করতে পারবেন।

Spread the love

2 COMMENTS

  1. সর্ব শেষ ১০ টি ট্রানজেকশন মানে কি সর্ব শেষ লেন-দেন কি বুঝায়?

    • প্রথমেই কমেন্ট করার জন্য ধন্যবাদ জানাচ্ছি। সর্বশেষ লেনদেন মানে হচ্ছে ঐ নম্বর থেকে সর্বশেষ যেই পরিমাণ টাকা ক্যাশ ইন, ক্যাশ আউট, সেন্ড মানি, রিসিভ মানি, মোবাইল রিচার্জ, পে বিল করা হয়েছে সেগুলো। সর্বশেষ ১০ টির যেকোনো একটি।

      শর্ট করে বলতে গেলে, আপনার বিকাশ নম্বর থেকে যেই পরিমাণ টাকা একবারে খরচ হয়েছে অথবা একবারে যেই পরিমাণ টাকা আপনার বিকাশে এসেছে সেটাই আপনার একটি লেনদেন।

      এভাবে সর্বশেষ যে ১০ টি লেনদেন করেছেন সেটার যেকোনো একটি সিলেক্ট করে সেই টাকার পরিমান দিতে হবে।

LEAVE A RESPONSE

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

আমি হাবিবুর রহমান। পেশায় একজন শিক্ষক। একই সাথে ট্রিক ব্লগ বিডির প্রতিষ্ঠাতা। ব্লগিং করতে ভালো লাগে। মানুষকে নিজের জানা বিষয়গুলো জানাতে আনন্দ পাই। আমার লেখা পড়ে কারো বিন্দু মাত্র উপকার হলেই আমি স্বার্থক।