পুরাতন জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করার নিয়ম 2022

প্রিয় পাঠক, কেমন আছেন? আজকে আমরা পুরাতন জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করার নিয়ম নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব। যারা হাতে লেখা জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করতে চান তারাও এই লেখাটি পড়ে সেটি করতে পারবেন। তাহলে আর দেরি না করে শুরু করা যাক।

দেশের জনগণের জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরি করার উদ্যোগ গ্রহণ করার পর থেকে এ পর্যন্ত সরকার এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বেশ কয়েকবার তাদের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেছে।

প্রথম অবস্থায় জন্ম নিবন্ধন সনদ করতে কোন রকম ঝামেলা পোহাতে হতো না। ইউনিয়ন পরিষদ বা পৌরসভা থেকে একটা ফর্ম নিয়ে এসে সেটা হাতে পূরণ করে জমা দিলেই সেটা জন্ম নিবন্ধন হিসেবে ব্যবহৃত হতো।

কিন্তু পরবর্তীতে জন্ম নিবন্ধন পদ্ধতিটি অনলাইন করা হয় যার ফলে এখন বেশ জটিল হয়ে গেছে প্রক্রিয়াটি। জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করার নিয়ম অনেকেরই জানা নেই। আমাদের আজকের আলোচনায় সেই বিষয়টি আপনাদেরকে জানানোর চেষ্টা করব।

পুরো আর্টিকেলটি যদি আপনি পড়েন তাহলে জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করার পাশাপাশি জন্ম নিবন্ধন সম্পর্কিত অন্যান্য সকল সমস্যার সমাধান আপনি করতে পারবেন।

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করা আছে কিনা চেক করে নিন

সর্বপ্রথম অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন চেক করে দেখে নিন আপনার জন্ম নিবন্ধনটি অনলাইন করা আছে কিনা। যদি দেখেন সেটি অনলাইনে নেই তাহলে নিচের ধাপগুলো অনুসরণ করুন।

পুরাতন জন্ম নিবন্ধন অনলাইনে করার নিয়ম

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করার প্রক্রিয়াটি বেশ জটিল। আপনাকে বিভিন্ন সময়ে নিজের গুরুত্বপূর্ণ কাজ ফেলে ইউনিয়ন পরিষদ অথবা পৌরসভায় বারবার ছোটাছুটি করতে হবে। কিন্তু আপনি চাইলে সেই ঝামেলা কমিয়ে নিয়ে আসতে পারেন। ঘরে বসেই অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করার আবেদন করতে পারেন।

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করার নিয়ম
জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করার নিয়ম

তবে এই প্রক্রিয়াটি একটু জটিল। আপনার হাতের কাছে আপনার প্রয়োজনীয় সকল কাগজপত্র থাকতে হবে। সেই সঙ্গে একটু লম্বা সময় হাতে নিয়ে আবেদন ফর্মটি পূরণ করতে বসতে হবে। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক কিভাবে পুরাতন জন্ম নিবন্ধন অনলাইনে করবেন।

প্রথম ধাপঃ ওয়েবসাইটে প্রবেশ করুন

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করার জন্য প্রথমে আপনাকে সরকার নির্ধারিত ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে। এই ওয়েবসাইটটি আপনি গুগলে সার্চ করলেই পেয়ে যাবেন অথবা আমাদের এখান থেকে নিচের লিংকটিতে ক্লিক করে প্রবেশ করতে পারেন।

https://bdris.gov.bd/br/application

দ্বিতীয় ধাপঃ স্থান নির্ধারণ

ওয়েব সাইটটিতে প্রবেশ করার পর আপনি এমন একটি ইন্টারফেস দেখতে পাবেন। নিচের দিকে তিনটি অপশন দেখতে পাচ্ছেন। জন্মস্থান, স্থায়ী ঠিকানা এবং বর্তমান ঠিকানা। এখান থেকে যে কোন একটি সিলেক্ট করা আবশ্যক।

নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন
নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন

এই বিষয়টি হচ্ছে আপনি আপনার জন্ম সনদ কোথা থেকে সংগ্রহ করতে চাচ্ছেন তা আপনার কাছে জিজ্ঞাসা করা হচ্ছে। একজন মানুষের মূলত তিন ধরনের ঠিকানা থাকে। একটি হচ্ছে জন্মস্থান, অন্য দুটি হল স্থায়ী এবং বর্তমান ঠিকানা।

আপনি যদি জন্মস্থান থেকে জন্ম নিবন্ধন সনদ সংগ্রহ করতে চান তাহলে ‘জন্মস্থান‘ সিলেক্ট করবেন। অথবা অন্য যে কোন একটি অপশন সিলেক্ট করতে হবে। এর পরে “পরবর্তী” অপশনটিতে ক্লিক করবেন।

তৃতীয় ধাপঃ ফর্ম পূরণ করতে হবে

পরবর্তী অপশনটিতে ক্লিক করার পর আপনি আরও একটি ফরম পাবেন। 

নিবন্ধনকারী ব্যক্তির পরিচিতি | জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করার নিয়ম
নিবন্ধনকারী ব্যক্তির পরিচিতি

সেখানে সম্পূর্ণ সঠিক তথ্য দিয়ে আপনাকে আবেদন ফর্মটি পূরণ করতে হবে। মনে রাখতে হবে, আপনি যদি কোনো তথ্য ভুল প্রদান করেন সেই তথ্য সঠিক করার আর কোন উপায় নেই। সেক্ষেত্রে আপনার জন্ম সনদ বাতিল হয়ে যাবে সুতরাং তথ্য সঠিক প্রদান করা খুবই জরুরি।

সেই সঙ্গে আপনি যে তথ্যটি প্রদান করছেন সেটি যাচাই করার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র চাওয়া হবে সুতরাং বুঝতেই পারছেন আপনার তথ্য পরিপূর্ণভাবে সঠিক হতে হবে এবং গোছানো হতে হবে। 

আবেদন ফরম পূরণ করার সময় একটি বিষয় মাথায় রাখবেন যে অপশন গুলো তে লাল রংয়ের তারকা চিহ্ন রয়েছে সেগুলো অবশ্যই পূরণ করতে হবে। আর যেগুলোর পাশে লাল রঙের তারকা চিহ্ন নেই সেগুলো পূরণ না করলেও চলবে।

ফরম পূরণের এক পর্যায়ে এসে আপনি যখন আপনার জন্ম তারিখ সিলেক্ট করবেন তখন আপনার জন্ম তারিখ সঠিক কিনা এটা যাচাই করার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র আছে কিনা সেটা আপনার কাছে জানতে চাইতে পারে।

অ্যাটাচমেন্ট অ্যাভেইলেবিলিটি চেক
অ্যাটাচমেন্ট অ্যাভেইলেবিলিটি চেক

সেক্ষেত্রে ছবির মত আপনার কাছে দুটি অপশন থাকবে। যদি আপনার কাছে সেই কাগজপত্রগুলো থাকে তাহলে সবুজ বাটনটিতে (আমার কাছে ডকুমেন্টগুলি আছে) ক্লিক করবেন অন্যথায় লাল বাটনটিতে ক্লিক করতে হবে। ফরমটি পূরণ করা হয়ে গেলে “পরবর্তী” অপশনটিতে ক্লিক করবেন।

বিঃদ্রঃ জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর থাকলে দিয়ে দিবেন। না থাকলে দেওয়ার দরকার নেই।

চতুর্থ ধাপঃ পিতা এবং মাতার তথ্য দিন

আগের ফর্মটি পূরণ করার পর আপনার কাছে নতুন আরো একটি ফর্ম আসবে। এখানে আপনার পিতা এবং মাতার তথ্য চাওয়া হবে। সেক্ষেত্রে তাদের জন্ম নিবন্ধন নাম্বার, তাদের নাম এবং তাদের জাতীয় পরিচয় পত্র নম্বর চাওয়া হবে।

পিতা মাতার তথ্য
পিতা মাতার তথ্য

সরকারি এই ওয়েবসাইট অনুযায়ী এখানে আপনি যেকোনো একজনের তথ্য প্রদান করলেই হবে। তবে ইউনিয়ন পরিষদ এবং পৌরসভা থেকে বলা হয় দুজনার তথ্য প্রদান করতে। যেহেতু আমরা ইউনিয়ন এবং পৌরসভার কাছে থেকেই আমাদের জন্ম নিবন্ধন সনদ সংগ্রহ করবো সে ক্ষেত্রে দুজনের তথ্য প্রদান করাই ভালো। এখানেও খুব সাবধানতার সঙ্গে বাবা-মায়ের তথ্যগুলো দিয়ে পূরণ করবেন। তারপর “পরবর্তী” অপশনটিতে ক্লিক করবেন।

পঞ্চম ধাপঃ স্থায়ী ঠিকানা সিলেক্ট করুন

এরপরে আপনাকে আবারও জিজ্ঞাসা করা হবে আপনার স্থায়ী ঠিকানা কোনটি। এজন্য অবশ্য এই ওয়েবসাইটটিতে একটি পন্থা অবলম্বন করা হয়েছে। এখানে আপনাকে প্রশ্ন করা হবে নিচের কোন ঠিকানায় আপনি আপনার স্থায়ী ঠিকানা হিসেবে সিলেক্ট করতে চান কিনা? সেখানে আপনি “কোনোটিই নয়” সিলেক্ট করবেন।

এর পরে আপনাকে নিচে অপশন দেওয়া হবে জন্মস্থান এর ঠিকানা এবং স্থায়ী ঠিকানা একই। যদি আপনার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হয় তাহলে সেটা টিকমার্ক দেবেন। এরপর একই প্রশ্ন আবারও জিজ্ঞাসা করা হবে। একই প্রক্রিয়া আবারো রিপিট করবেন। এভাবেই মূলত আপনার স্থায়ী ঠিকানা সিলেক্টেড হয়।

আপনার ঠিকানা দিন
আপনার ঠিকানা দিন

তবে যদি কোনো ক্ষেত্রে স্থায়ী ঠিকানা সেলেক্টেড না হয় তাহলে নিজে লিখে স্থায়ী ঠিকানা প্রদান করতে হবে। স্থায়ী ঠিকানা সিলেক্ট হওয়ার পর আপনাকে আবারও “পরবর্তী” অপশনটিতে ক্লিক করতে হবে।

ষষ্ঠ ধাপঃ আবেদনকারীর মোবাইল নম্বর

এরপরে আপনাকে আরো একটি স্টেপ পার করতে হবে। সেখানে আপনাকে জিজ্ঞেস করা হবে যে ব্যক্তির জন্য আপনি এপ্লাই করলেন সেটা কি আপনি নিজে বা অন্য কারো জন্য। যদি আপনার নিজের জন্য হয় তাহলে আপনার নাম আসবে এবং সেইসঙ্গে আপনার ফোন নাম্বার এবং ইমেইল এড্রেস প্রদান করতে হবে।

আবেদনকারীর প্রত্যয়ন ও মোবাইল নম্বর
আবেদনকারীর প্রত্যয়ন ও মোবাইল নম্বর

এতে করে আপনার জন্ম নিবন্ধন সম্পর্কিত সকল তথ্য আপনাকে কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে এসএমএস বা মেইল করে পাঠানো হবে। আর যদি এটি অন্য কারো জন্য হয় তাহলে সেই ব্যক্তির ফোন নাম্বার এবং জাতীয় পরিচয় পত্র নম্বর সহ অন্যান্য তথ্য প্রদান করতে হবে।

সপ্তম ধাপঃ জন্মস্থান ও জন্মতারিখের তথ্য প্রদানকারীর তথ্য

এ পর্যায়ে আপনাকে জন্মস্থান ও জন্মতারিখের তথ্য প্রদানকারীর তথ্য দিতে হবে। এক্ষেত্রে আপনার মেম্বার বা ওয়ার্ড কমিশনারের জন্ম তারিখ নম্বর, এনআইডি নম্বর ও নাম দিতে পারেন।

দ্বিতীয় ক্ষেত্রে আপনার চেয়ারম্যান, মেম্বার বা ওয়ার্ড কমিশনারের জন্ম তারিখ নম্বর, এনআইডি নম্বর ও নাম দিতে হবে।

জন্মস্থান ও জন্মতারিখের তথ্য প্রদানকারীর তথ্য
জন্মস্থান ও জন্মতারিখের তথ্য প্রদানকারীর তথ্য

অষ্টম ধাপঃ সংযোজন

নিচের দিকে ‘+সংযোজন‘ বাটনে ক্লিক করে আবেদনকারীর জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট, MMBS ডাক্তার দ্বারা প্রত্যয়ন করা মেডিকেল সার্টিফিকেট জমা দিতে হবে। আর ছোটদের ক্ষেত্রে টিকা কার্ডও দেওয়া যাবে।

এছাড়াও একই বাটনে ক্লিক করে আবেদনকারীর বাবা ও মায়ের জন্ম নিবন্ধনের স্ক্যান কপি বা ছবি জমা দিতে হবে। সকল তথ্য প্রদান শেষে আপনাকে ‘পরবর্তী‘ অপশনটিতে ক্লিক করতে হবে।

ডকুমেন্ট সংযোজন
সংযোজন

অষ্টম ধাপঃ তথ্য যাচাই করুন

জন্ম নিবন্ধন আবেদনের শেষ পর্যায়ে চলে এসেছি আমরা। এ পর্যায়ে আপনাকে সকল তথ্য পুনরায় দেখানো হবে। আপনি সকল তথ্য নিজে থেকে পড়বেন। যদি কোনো রকম ভুল বা অসঙ্গতি থাকে সেটাকে ঠিক করতে হবে। আর যদি কোন ভুল না থাকে তাহলে আপনাকে “সাবমিট” বাটনে ক্লিক করতে হবে।

সব ঠিকঠাক আছে কিনা দেখে নিন
সব ঠিকঠাক আছে কিনা দেখে নিন

শেষ ধাপঃ আবেদন পত্র প্রিন্ট করুন

“সাবমিট” বাটনে ক্লিক করার সঙ্গে সঙ্গে আপনার আবেদনটি গ্রহণ করা হবে এবং আপনাকে আবেদন পত্রের নম্বর প্রদান করতে হবে।

আপনাকে সবসময় এই নম্বরটি সংরক্ষণ করে রাখতে হবে কারণ এটির মাধ্যমে আপনি আপনার জন্ম নিবন্ধনের পরবর্তী অবস্থা সম্পর্কে জানতে পারবেন। সেই সঙ্গে আপনি অবশ্যই “আবেদন পত্র প্রিন্ট করুন” অপশনটিতে ক্লিক করবেন।

আবেদনপত্র প্রিন্ট
আবেদনপত্র প্রিন্ট

এতে করে আপনার আবেদন পত্র প্রিন্ট করার মত একটি কপি তারা আপনাকে দেবে। যা প্রিন্ট করে আপনাকে পরবর্তী 15 দিনের মধ্যেই  ইউনিয়ন পরিষদ অথবা পৌরসভায় প্রদান করতে হবে।

এটি শুধুমাত্র একটি আবেদন প্রক্রিয়া। এর মাধ্যমে আপনি আপনার জন্ম নিবন্ধন পাওয়ার একধাপ এগিয়ে গেলেন। পরবর্তী ধাপে আপনাকে অবশ্যই আপনার ইউনিয়ন পরিষদে অথবা পৌরসভায় যোগাযোগ করতে হবে। তারা বাকি কাজ করে দেবে অথবা পরবর্তীতে আপনাকে আর কি কাজ করতে হবে সেটা বলে দেবে।

আশা করি কিভাবে আবেদন করতে হয় সেই প্রক্রিয়াটি বুঝে গেছেন। এভাবে আবেদন করার মাধ্যমে আপনি আপনার হাতে লেখা জন্ম নিবন্ধন অথবা পুরাতন জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করতে পারবেন।

সৌজন্যেঃ Udc Tech

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন চেক করার নিয়ম

জন্ম নিবন্ধন সনদ অনলাইন করার নিয়ম আপনারা ইতিমধ্যে জেনে গেছেন। এই প্রক্রিয়ায় আপনারা চাইলে আপনাদের পুরাতন জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করাতে পারেন।

তবে আবেদন করার পর আপনার জন্ম নিবন্ধন বর্তমানে কোন অবস্থায় আছে সেটা চেক করার জন্য আপনাকে আরও একটি বিশেষ পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে। এবারে আমরা সেটি আপনাদেরকে জানানোর চেষ্টা করব। 

আগের জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করার নিয়ম মেনে যদি আপনি আবেদন করে থাকেন তাহলে আবেদন করার সময়ে জন্ম নিবন্ধন নম্বর নামে একটি নম্বর আপনাকে দেওয়া হয়েছে। যেটা আমরা আর্টিকেল এর পূর্বের অংশে বলেছি। সেই নাম্বারটি ব্যবহার করে আপনি আপনার জন্ম নিবন্ধন অনলাইনে চেক করতে পারেন।

অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন চেক করার জন্য উপরোক্ত সেই ওয়েবসাইটটিতে আপনাকে যেতে হবে। লিংকে ক্লিক করলে আপনি একটি ইন্টারফেস দেখতে পাবেন।

যেখানে জন্ম নিবন্ধন নম্বর এবং জন্মতারিখ প্রদান করার পর অনুসন্ধান অপশনটিতে ক্লিক করে আপনি আপনার জন্ম নিবন্ধন এর বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে জানতে পারবেন। এটি খুবই সহজ এবং সংক্ষিপ্ত একটি প্রক্রিয়া যা যে কেউ যেকোনো স্থান থেকে যেকোন ভাবে চেক করতে পারে।

এটি নিয়ে আমাদের আলাদা একটি আর্টিকেল আছে। সেটির লিংক উপরের অংশে দেওয়া আছে। দেখে নিতে পারেন।

জন্ম নিবন্ধন ইংরেজি করার নিয়ম

খুব সম্প্রতি জন্ম নিবন্ধন কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে নতুন আরো একটি বিষয় জানানো হচ্ছে। সেটি হচ্ছে তারা জন্ম নিবন্ধন কে ইংরেজি করার ব্যাপারে পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।

এজন্য ব্যাপক প্রচারণা চালানো হচ্ছে এবং জনগণকে উৎসাহিত করা হচ্ছে জন্ম নিবন্ধন ইংরেজি করার জন্য। কিন্তু অনেকেই জানেনা কিভাবে বাংলা জন্ম নিবন্ধন ইংরেজি করতে হয়।

বাংলা জন্ম নিবন্ধন ইংরেজি করতে হলে আপনাকে প্রথমে আপনার জন্ম নিবন্ধনের তথ্য গুলো ওপেন করতে হবে তারপরে সেটা সংশোধনের জন্য আবেদন করতে হবে। আপনি সর্বোচ্চ চার বার আপনার জন্ম নিবন্ধনের তথ্য সংশোধন করতে পারবেন।

কিভাবে সংশোধনের জন্য আবেদন করতে হয় সেই বিষয় নিয়ে আমরা আরও একটি আর্টিকেল লিখেছি। সেটা পড়ে জানতে পারেন। সেখানে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে। কিভাবে আপনার জন্ম নিবন্ধন ইংরেজি করবেন তা জানতে পোস্টটি পড়ে নিন।

শেষ কথা

বন্ধুরা এই ছিল মূলত জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করার নিয়ম। আমরা চেষ্টা করেছি পুরাতন জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করার নিয়ম দেখাতে। সেই সঙ্গে আপনার যদি হাতে লেখা জন্ম নিবন্ধন থাকে সেটাও কিভাবে অনলাইন করবেন সেটাও দেখানোর চেষ্টা করেছি।

পুরো বিষয়টা আশা করছি আপনার সমস্যা সমাধানে যথেষ্ট ছিল। সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ে জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে আজকে এখানেই শেষ করছি।

4 thoughts on “পুরাতন জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করার নিয়ম 2022”

  1. এটা নতুন করে জন্ম নিবন্ধন হল। পুরাতন জন্ম নিবন্ধনকে আপডেট করা হল না। নতুন করে জন্ম নিবন্ধন করলেতো আগের রেজিট্রেশন নাম্বার পরিবর্তন হয়ে যাবে। অনেকেই
    অনলাইন হওয়ার আগে জন্ম নিবন্ধন করেছে এবং সেই নাম্বার স্কুলে ভর্তি হওয়ার সময় ব্যবহার করেছে। সেই ব্যক্তি কি করবে ?

    1. MD Habibur Rahman (Admin)

      আপনার সুন্দর ও গঠনমূলক মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ। আপনার কথাটি আমরা বুঝতে পেরেছি। কিন্তু দুঃক্ষের বিষয় হলো আপাতত এই প্রক্রিয়া ছাড়া আমাদের জানা মতে অন্য কোন উপায় নেই। আপনার কোন উপায় জানা থাকলে আমাদের জানাতে পারেন। আমরা বিষয়টি গুরুত্বের সাথে দেখব। ধন্যবাদ।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Scroll to Top