ডিজিটাল মার্কেটিং কেন শিখবেন এবং কোথায় শিখবেন?

চলে এলাম আরো একটি নতুন আর্টিকেল নিয়ে এবং যার বিষয়বস্তু হলো ডিজিটাল মার্কেটিং। শুধু তাই নয়! আজ আমরা আলোচনা করবো ডিজিটাল মার্কেটিং কি, কিভাবে কাজ করে, পেশা হিসেবে কেন ডিজিটাল মার্কেটিং গ্রহণ করবেন এবং কোথায় শিখবেন সে-সম্পর্কে। 

ডিজিটাল মার্কেটিং কি?

ডিজিটাল মার্কেটিং কি বা কিভাবে কাজ করে তা বোঝাতে আজ আমরা একটি ছোট্ট, অর্থবহ, বাস্তব এবং সহজ উদাহরণের সাহায্য নিবো। চলুন তবে শুরু করা যাক এবং জানা যাক কোথা থেকে এই পরিপূর্ণ ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে হবে।

ধরুন আপনি একটি সাইকেল বিক্রি করতে চাচ্ছেন। এক্ষেত্রে আপনাকে সবার আগে, আপনার চারপাশের মানুষের সামনে তুলতে ধরতে হবে যে আপনি সাইকেল বিক্রি করেন বা আপনি একজন সাইকেল সেলার। এটি হলো একটি বিজ্ঞাপনের অংশবিশেষ। 

এবার আপনি যে সাইকেল সেল করেন সেটি জানানোর পাশাপাশি পাবলিকলি দেখাতে হবে আপনার সাইকেলটিকে। কেননা বিশ্বাসযোগ্যতারও একটি ব্যাপার আছে। আপনার কাছে যদি আসলেই সাইকেল না থাকে তবে কেনো মানুষ আপনার পেছনে ছুটবে? আর্টিকেলের এই পয়েন্টের কাজটিকে বলা হয় প্রমোশন।

এবার আপনাকে সবার সামনে নিজের প্রোডাক্ট তুলে ধরার পাশাপাশি কাছের কিছু বন্ধুবান্ধবকেও প্রমোট করতে বলতে হবে। যাতে করে সেল জেনারেট হয়। এটি হলো মার্কেটিংয়ের পাবলিসিটির অংশ। 

ডিজিটাল মার্কেটিং
ডিজিটাল মার্কেটিং

আপনি যখন নিজে এবং আপনার পুরো ফ্রেন্ড সার্কেল সাথে নিয়ে সাইকেলের প্রমোট করবেন, তখন দেখবেন কিছু মানুষ আপনার প্রোডাক্ট বা সাইকেল নিয়ে আলোচনা সমালোচনা করছে। এক্ষেত্রে এটি হবে পাবলিক রিয়েকশন। 

পরবর্তী বা সবশেষে রিয়েকশন করা পাবলিকের মাঝে একজন বা দু’জন আপনার প্রোডাক্ট সরাসরি কিনে নিবে। ফলে আপনার একটি সেল জেনারেট হবে।

উপরের পুরো প্রক্রিয়াটি হলো ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের এক-একটি অংশ। সাধারণত ডিজিটাল মার্কেটিং এর মাধ্যম হলো: ফেসবুক, গুগল, ইউটিউব ও অন্যান সামাজিক মাধ্যম এবং সার্চ  ইঞ্জিন গুলো।

আশা করি ডিজিটাল মার্কেটিং কি এবং তা কিভাবে কাজ করে তা বুঝতে কোনো অসুবিধা হয়নি। 

পেশা হিসেবে কেন ডিজিটাল মার্কেটিং গ্রহণ করবেন?

এক্কেবারে সোজা কথায় পেশা হিসেবে ডিজিটাল মার্কেটিংকে বেছে নেওয়ার অন্যতম কারণ হলো এর বাড়তি চাহিদা। মনে রাখবেন, নন-প্রফিটেবল কোম্পানি ছাড়া অনলাইনে বাকি প্রতিটি কোম্পানিই আসে বা কাজ করে সেল জেনারেট করার জন্য। হোক সেটা অনলাইন প্রোডাক্ট বা সার্ভিস কিংবা অফলাইন প্রোডাক্ট। পুরো ব্যাপারটির পেছনেই কাজ করে সেল জেনারেট হওয়া।

এক্ষেত্রে এক একটি ওয়েবসাইট এক একটি ওয়েবসাইটের কম্পিটিটর। প্রতিটি সাইট বা কোম্পানিই যেহেতু সেল জেনারেট করতে চাইবে সেহেতু ডিজিটাল মার্কেটিং সঠিকভাবে আয়ত্বে থাকা মানুষটির কাজের চাহিদা অটোমেটিক বাড়বে।

তবে হ্যাঁ! কাজের মতো কাজ শিখে তবেই মার্কেটপ্লেসে নামতে হবে। যেনো তেনো কাজ শিখে “মার্কেটে কাজ নেই, কাজ পাচ্ছি না” বলে চেঁচামেচি করাটা নিতান্তই বোকামির দলে পড়ে।

ডিজিটাল মার্কেটিং এর কাজের পরিধি কেমন এবং কত টাকা আয় করতে পারবেন?

ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের কাজের পরিধি কতটা তা হয়তো ইতিমধ্যেই আঁচ করতে পেরেছেন৷ তবে ব্যাপারটি আরেকটু ক্লিয়ার করে যদি বলতে চাই তবে বলতে হয় ডিজিটাল মার্কেটিং এর কাজের পরিধি বর্তমানে এবং ভবিষ্যতে ব্যাপক আকার ধারণ হবে।

মানুষ যে হারে অনলাইনের প্রতি ঝুঁকছে, অনলাইন থেকে কেনাকাটা করার পরিমাণ বাড়িয়ে তুলছে সে হারে বাড়বে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের চাহিদা। বাড়বে কাজের ব্যাপকতা। প্রমোশন, পাবলিশিংসহ বিভিন্ন সেক্টরভিত্তিক কাজ রয়েছে ডিজিটাল মার্কেটিং সেক্টরে। যা করে আপনিও মাসে ২০ হাজার থেকে ২/৩ লাখ পর্যন্ত ইনকাম জেনারেট করতে সক্ষম হবেন। 

ডিজিটাল মার্কেটিং কোথায় শিখবেন?

এবার আপনাকে কাজটি শিখতে হবে। এখন প্রশ্ন হলো ডিজিটাল মার্কেটিং কোথায় শিখবেন এবং তা যথাযথভাবে কোথায় শেখা যাবে! চলুন জেনে নিই ডিজিটাল মার্কেটিং কোথায় শিখবেন সে-সম্পর্কে। 

ফ্রি রিসোর্স: অনলাইনে অসংখ্য ফ্রি রিসোর্স রয়েছে। যা ব্যবহার করতে কোনোরকম ফি এর দরকার পড়ে না। যেমনঃ আর্টিকেল, ইউটিউব ভিডিও, ফেসবুক মার্কেটিং পোস্ট। ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কিত বিভিন্ন টিউটোরিয়াল রয়েছে এসব ফ্রি সেক্টরে। আপনি চাইলে ফ্রিতে এসব রিসোর্স ব্যবহার করে ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে পারেন৷ 

পেইড কোর্স: যারা ডিজিটাল মার্কেটিংকে পার্ট টাইম কাজ হিসেবে না নিয়ে ফুল ক্যারিয়ার হিসেবে নিতে চান তাদের জন্য রয়েছে বিভিন্ন পেইড কোর্স। সেটি হতে পারে অনলাইনে কিংবা অফলাইনে। এক্ষেত্রে আপনাকে ম্যানুয়ালি খুঁজে নিতে হবে কোন প্রতিষ্ঠানের কোর্স সবচেয়ে বেশি কার্যকর। 

বঙ্গীয় কোর্স: যারা প্রফেশনালি ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে চান এবং তা দক্ষ ডিজিটাল মার্কেটার হতে তাদের জন্য আর্টিকেলের এই পার্টটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। bongiyo.com এর কোর্সে চাইলে যে কেউ শূণ্য স্কিলে ঘরে বসেই হয়ে যেতে পারে একজন সফল ডিজিটাল মার্কেটার। চাইলে আপনিও এই সুযোগটিকে কাজে লাগাতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ আউটসোর্সিং কি? কিভাবে করে?

ইতি কথা

ডিজিটাল মার্কেটিং নিয়ে আশা করি অনেক অজানা প্রশ্নের উত্তর জানানো সম্ভব হয়েছে। চেষ্টা করেছি খুবই সহজ মাধ্যমে পুরো প্রক্রিয়াটির সাথে আপনাদের পরিচয় করিয়ে দিতে। আশা করি বুঝতে কোনো সমস্যা হয়নি। তবুও যদি মনে কোনো প্রশ্ন জেগে থাকে তবে সরাসরি কমেন্ট বক্সে টোকা মারুন কিংবা যোগাযোগ করুন আমাদের সাথে। হ্যাপি মার্কেটিং।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Scroll to Top