নগদ মোবাইল ব্যাংকিং ইন্টারেস্ট | সুবিধা ও অসুবিধা

বর্তমান মোবাইল ব্যাংকিংয়ে বিকাশের পরেই নগদের স্থান। এটি ধীরে ধীরে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। গ্রাহকগণ নগদ থেকে বিভিন্ন রকমের অফার পেয়ে থাকেন। তেমনি একটি অফার হচ্ছে নগদ মোবাইল ব্যাংকিং ইন্টারেস্ট বা নগদ সঞ্চয় মুনাফা।

আজকে আমরা মূলত নগদ মোবাইল ব্যাংকিং ইন্টারেস্ট সম্পর্কে সম্পূর্ণভাবে জানার চেষ্টা করব। আশা করি, আপনাদের উপকারে আসবে।

নগদের মোবাইল ব্যাংকিং এর উপর ইন্টারেস্ট কিভাবে পাবেন? কি করতে হবে? এবং টাকা পাওয়ার পদ্ধতিসহ সম্পূর্ণ কিছু জানতে এই পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়ুন।

নগদ একাউন্টে অনেক মানুষই টাকা রাখেন। কিন্তু আপনি জানেন কি? নগদ একাউন্টে টাকা রেখে আপনি মুনাফা পেতে পারেন। অনেকেই হয়তো জানেন না। কিন্তু আসলেই সত্যি। আপনি নগদ একাউন্টে টাকা রেখে মাসে মাসে মুনাফা পেতে পারেন। তো চলুন জেনে নেই কিভাবে নগদ একাউন্টে টাকা রাখলে আপনি লাভ বা ইন্টারেস্ট পাবেন।

নগদ মোবাইল ব্যাংকিং ইন্টারেস্ট
নগদ একাউন্টের মুনাফা

আপনি যখনই নগদ একাউন্টে টাকা রাখবেন তখনই আপনি ইন্টারেস্ট পাওয়ার জন্য বিবেচিত হবেন। এজন্য আপনাকে কিছু শর্ত মেনে চলতে হবে। কিছু নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা আপনার একাউন্টে নির্দিষ্ট সময়ের জন্য থাকতে হবে।

নিচে আমরা এ বিষয়ে একটি চার্ট উপস্থাপন করলাম। সেই চার্ট থেকে সহজেই আপনি টাকার অংক এবং সেই অনুযায়ী কত টাকা ইন্টারেস্ট পাবেন সেই বিষয়টি উল্লেখ করা হলো। এখান থেকে খুব সহজেই বুঝতে পারবেন।

কত টাকা রাখলে কত টাকা ইন্টারেস্ট?

নগদ-এর সকল নিয়মিত গ্রাহক নিচের ছকে উল্লিখিত হারে মুনাফা পাবেন-

মুনাফার স্ল্যাববার্ষিক মুনাফা হার
৫০০০.০০১ টাকা থেকে ঊর্ধ্বে৬.০%
১০০০.০০১ টাকা থেকে ৫০০০.০০০ টাকা৪.০%
০ টাকা থেকে ১০০০.০০০ টাকা০.০%

সর্বনিম্ন এক হাজার এক টাকা (১০০০.০০১৳) থেকে শুরু করে যে কোন পরিমাণ টাকা নগদ একাউন্টে একমাস রাখলে আপনি নির্দিষ্ট হারে মুনাফা পাবেন। এক্ষেত্রে ১০০০.০০১ টাকা থেকে শুরু করে ৫,০০০ টাকা পর্যন্ত নগদ একাউন্টে রাখলে বাৎসরিক ৪.০% হারে মুনাফা দেওয়া হবে।

আরো পড়ুনঃ নগদ মোবাইল ব্যাংকিং

সেই মুনাফার টাকা নির্দিষ্ট হিসাব অনুযায়ী মাস শেষে আপনার নগদ একাউন্টে যুক্ত হবে। ৫০০০.০০১ টাকা থেকে শুরু ঊর্ধ্বে যেকোনো পরিমাণ টাকা সর্বনিম্ন একমাস আপনার নগদ একাউন্টে থাকলে সে ক্ষেত্রে আপনি বাৎসরিক ৬.০% হারে ইন্টারেস্ট পাবেন। খুবই চমৎকার তাই না?

বাংলাদেশের বেশিরভাগ ব্যাংকই ৪-৬% হারে ইন্টারেস্ট দিয়ে থাকে। কিন্তু এক্ষেত্রে নগদ একাউন্টে আপনি ৬.০% হারে মুনাফা পেতে পারেন। এটা আমার কাছে খুবই চমৎকার মনে হয়েছে।

কার জন্য নগদ মোবাইল ব্যাংকিং ইন্টারেস্ট?

অনেকের ঘরেই অলস ভাবে বিভিন্ন এমাউন্টের টাকা পড়ে থাকে। বিভিন্ন কারণে হয়তো আপনারা সেই টাকা ব্যাংকে রাখেন না। আপনি যদি সেই টাকাটি আপনার নগদ একাউন্টে রেখে মাসে মাসে ইন্টারেস্ট পেতে পারেন এক্ষেত্রে আপনার টাকাটি ও নিরাপদে থাকলো আর মাসে মাসে ইন্টারেস্টও পেলেন।

বিশেষ করে যারা ব্যাংকে টাকা উঠানো ঝামেলা মনে করেন তারা নগদ একাউন্টে টাকা রেখে মুনাফা নিতে পারেন এবং যে কোন মুহূর্তে দরকার পড়লে আপনার নিকটস্থ এজেন্ট থেকে টাকা তুলে নিতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনার ব্যাংকে যাওয়ার কোনো প্রয়োজন পড়বে না।

নগদ একাউন্টের মুনাফা

এছাড়াও ছাত্রছাত্রীরা চাইলেই নিজেদের জমানো টাকা নগদ একাউন্টে রাখতে পারেন। এক্ষেত্রে মাটির ব্যাংকে রাখলে আপনি কোন লাভ পাবেন না। কিন্তু নগদ একাউন্টে রাখলে আপনি নির্দিষ্ট পরিমাণ ইন্টারেস্ট পাবেন। আপনার মূল টাকাও থাকলো, পাশাপাশি নতুন করে কিছু লাভ পেলেন।

কার জন্য নগদ ইন্টারেস্ট নয়

আমাদের সমাজে অনেক মানুষ আছেন যারা ইসলামিক মতাদর্শে জীবনযাপন করে অভ্যস্ত, যারা সুদকে ঘৃণা করে, তারা কখনোই সুদ খেতে চাইবেন না। এমন অনেক ব্যক্তি আছেন যারা নগদ একাউন্টে টাকা রাখেন কিন্তু তারা ইন্টারেস্ট পেতে আগ্রহী নন অর্থাৎ যারা নগদ থেকে পাওয়া সুদের টাকা গ্রহণ করতে আগ্রহী নয়, তারা চাইলেই খুব সহজে নগদ মোবাইল ব্যানফকিং ইন্টারেস্ট সার্ভিস বন্ধ করতে পারেন।

নগদ অ্যাপ থেকে সেটিংস অপশনে গিয়ে আপনি অপশনটি বন্ধ করে দিতে পারেন। অথবা নগদ অ্যাপস থেকে করতে না পারলে কাস্টমার কেয়ারে ফোন করুন। সেক্ষেত্রে তাদেরকে বিস্তারিত বলুন যে, আপনি নগদ মোবাইল ইন্টারেস্ট সার্ভিস গ্রহণ করতে চাচ্ছেন না। আপনি সেখান থেকে কোন ইন্টারেস্টও পেতে চাচ্ছেন না।

তখন সেখান থেকে আপনার আবেদনটি নিশ্চিত করা হবে এবং নিশ্চিত করার পর আপনাকে একটি নোটিফিকেশন এসএমএস করা হবে। এরপর থেকে আপনার একাউন্টে যতই টাকা রাখুন আপনি সেই অনুযায়ী কোন ইন্টারেস্ট পাবেন না।

নগদ একাউন্টের সুবিধা

উপরের লেখাগুলো পড়ে খুব সহজেই ইতিমধ্যে অনেকেই বুঝে গেছেন যে নগদ একাউন্টের সুবিধা বা নগদ সঞ্চয় এর সুবিধা কি। আবারো কিছুটা আলোচনা করা হলো।

প্রথমত আপনার যদি অলস ভাবে কিছু টাকা ঘরে পড়ে থাকে, সেটা হোক বড় অংকের কিংবা ছোট অংকের আপনি সেই টাকাটি নগদ একাউন্টে রেখে বাড়তি কিছু লাভ করতে পারেন।

এক্ষেত্রে আপনার কোনো পরিশ্রম করতে হচ্ছে না। আপনার টাকাটি অলস ভাবে পড়ে থাকছে না। তাছাড়া অনেকেই বিভিন্ন সময় নগদের মাধ্যমে লেনদেন করে থাকেন। কিন্তু তারপরও অনেক সময় নগদ একাউন্টে কিছু নির্দিষ্ট পরিমান টাকা থেকে যায়। এই সিস্টেমের কারণে আপনি ওই টাকাগুলো থেকে ইন্টারেস্ট পেয়ে যাবেন।

শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন সময় মাটির ব্যাংকে টাকা জমায়। তারা ওই টাকাগুলো নগদ একাউন্টে জমা করতে পারে। এক্ষেত্রে তাদের টাকাগুলো সেভ থাকবে এবং তারা একই সাথে ব্যাংকে রাখলে যে পরিমাণ টাকা পাবে নগদ একাউন্ট সেই পরিমাণ লাভ পেতে পারে।

আরো পড়ুনঃ নগদ একাউন্ট দেখার নিয়ম

সাধারণ ব্যাংকিং এ 4 থেকে 6 পার্সেন্ট হারে ইন্টারেস্ট দেওয়া হয়ে থাকে। কিন্তু নগদ এর ক্ষেত্রে আপনি সাধারণ ব্যাংকিং এর থেকেও বেশি অর্থাৎ 7.50 পার্সেন্ট হারে ইন্টারেস্ট পাবেন। এই বিষয়টি আমার কাছে খুবই চমৎকার মনে হয়েছে। আশা করি, আপনাদেরও ভালো লাগবে।

অসুবিধা

নগদ একাউন্টে টাকা রাখলে ইন্টারেস্ট পাওয়া যায়। এ বিষয়ে অনেক সুবিধা আছে। যেটা আমরা কিছুক্ষণ আগেই জানলাম। সুবিধার পাশাপাশি কিছু অসুবিধাও আছে। চলুন এবার কিছু অসুবিধা জেনে নেই।

আপনি ব্যাংকে টাকা রাখলে সে ক্ষেত্রে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ আপনাকে নির্দিষ্ট হারে লাভ দিবে। এক্ষেত্রে আপনি চেকের মাধ্যমে সম্পূর্ণ টাকা তুলতে পারবেন। কোনো বাড়তি খরচ নেই। কিন্তু নগদ একাউন্টে যে টাকাটি থাকবে আপনি কিন্তু সম্পূর্ণ টাকাটাই তুলতে পারবেন না।

কারণ নগদ একাউন্ট থেকে ক্যাশ আউট করতে গেলে একটা নির্দিষ্ট পরিমান চার্জ কাটে। বড় অংকের টাকা তুলতে গেলে চার্জের এমাউন্ট অনেক বড় অঙ্কের হয়ে দাঁড়ায়। অর্থাৎ ক্যাশ আউট চার্জ অনেক বেশি হয়ে যায়। সে ক্ষেত্রে ইন্টারেস্ট পাওয়ার পর সেই টাকাটা তুলতে গেলে ক্যাশ আউট চার্জ হিসাব করতে হবে।

ব্যাংকে সর্বোচ্চ ৬ শতাংশ পর্যন্ত ইন্টারেস্ট দিয়ে থাকে। নগদ 7.5% পর্যন্ত ইন্টারেস্ট দেওয়া হয়। কিন্তু ক্যাশআউট করার সময় যে পরিমাণ টাকা কাটে সেটাও কিন্তু আপনাকে খরচের হিসেবে ধরতে হবে। সে ক্ষেত্রে ব্যাংকের দেওয়া ইন্টারেস্ট নগদের দেওয়া ইন্টারেস্টে খুব একটা ডিফারেন্স হয় না।

আরো পড়ুনঃ নগদ একাউন্ট খোলার নিয়ম

ক্ষেত্রবিশেষে নগদে আপনি কম টাকা পেতে পারেন। এটি একটি বড় ধরনের অসুবিধা। এছাড়া আর বাকীগুলো খুব একটা বড় ধরনের অসুবিধা বলে আমার কাছে মনে হয় নি।

নগদ সঞ্চয়ের শর্তাবলি

মাসিক জমায় লভ্যাংশ পাওয়ার জন্য কিছু শর্ত ও নিয়মাবলি রয়েছি। সেগুলো একটু দেখে নেওয়া যাক।

  • মাসিক ভিত্তিতে মুনাফা প্রদান করা হবে।
  • প্রতিদিনের মুনাফার হার হিসাব করে মাস শেষে মুনাফা প্রদান করা হবে।
  • বাংলাদেশের প্রচলিত আইন অনুসারে প্রযোজ্য ট্যাক্স বা ভ্যাট কর্তনের পর সরাসরি নগদ অ্যাকাউন্টে মুনাফার অংশ পাঠিয়ে দেয়া হবে।
  • গ্রাহকের অ্যাকাউন্ট স্ট্যাটাস জনিত কোনো সমস্যার কারণে মুনাফা পাঠানো না গেলে, সে মাসে উক্ত গ্রাহক কোনো মুনাফা পাবেন না।
  • ইন্টারেস্ট পাওয়ার জন্য নগদ গ্রাহকের একাউন্ট অবশ্যই চালু থাকতে হবে।
  • ‘নগদ’ কোনোরকম পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই, যেকোনো সময় ক্যাম্পেইনের যেকোনো শর্তাবলি পরিবর্তন বা পরিবর্ধন এমনকি ক্যাম্পেইন বাতিল করারও অধিকার সংরক্ষণ করে।
  • প্রযোজ্য আইন, রেগুলেটরি নির্দেশিকা কিংবা নিজস্ব নীতির উপর ভিত্তি করে, ‘নগদ’ মুনাফা বাতিল করার অধিকার সংরক্ষণ করে

গ্রাহকবেধে নগদ একাউন্টের সুবিধা ও অসুবিধা দুইটাই রয়েছে। তাই আপনার সুযোগ-সুবিধা অনুযায়ী নগদ একাউন্ট পরামর্শ থাকলো। যেভাবে ব্যবহার করলে আপনি সুবিধা পাবেন সেভাবেই নগদকে ব্যবহার করুন।

এই পোস্টে আমরা নগদ মোবাইল ব্যাংকিং ইন্টারেস্ট সম্পর্কে বিস্তারিত বুঝানোর চেষ্টা করেছি। আশা করি, আপনারা বুঝতে পেরেছেন। কোনো বিষয় বুঝতে সমস্যা হলে নির্দ্বিধায় কমেন্ট করুন।

Sponsored by TrickBlogBD

ফ্রী মোবাইল রিচার্জ, বিভিন্ন এক্সক্লুসিভ টিপস & ট্রিক্স পেতে ও মতামত জানাতে আমাদের ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করুন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Scroll to Top