৭ টি সেরা ফ্রি VPN ও ভিপিএন ব্যবহারের নিয়ম

আবারো আরেকটি প্রযুক্তি বিষয়ক আর্টিকেল নিয়ে হাজির হলাম। আজকে আমরা ভিপিএন কি, সেরা ফ্রি ভিপিএন এবং ভিপিএন ব্যবহারের নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত জানবো।

ভিপিএন কি?

VPN এর পূর্ণরূপ ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক। ভিপিএন হলো একটি ভার্চুয়াল টানেল। এটি মূলত ব্যবহারকারী ও ব্যবহৃত ওয়েবসাইট বা অ্যাপের মধ্যে একটা গোপনীয়তা তৈরি করে।

আপনি যখন ভিপিএনে কানেক্ট থাকেন তখন কোনো সাইট অ্যাপে ঢুকার সময় ডাটা এনক্রিপ্ট হয়ে আপনার ISP তে যায়। সেখান থেকে ভিপিএন সার্ভারে গিয়ে ডিক্রিপ্ট হয়ে মূল ওয়েবসাইট বা অ্যাপের সার্ভারে রিকুয়েষ্ট যায়।

ভিপিএন কিভাবে কাজ করে ও ভিপিএন ব্যবহারের নিয়ম
ছবিঃ Shahin taj fokir

মূল সার্ভার থেকে ভিপিএন সার্ভারে এসে ডাটাগুলো আবারো এনক্রিপ্ট হয়ে আপনার ISP এর মাধ্যমে আপনার কাছে এসে ডিক্রিপ্ট হয়। অর্থাৎ আইএসপি জানে আপনি ভিপিএন সার্ভারে যাচ্ছেন। কিন্তু সেখান থেকে কোথায় যাচ্ছে সেটা আর আইএসপি জানতে পারেনা। অর্থাৎ আপনি গোপনভাবে সাইটটা ভিজিট করতে পারলেন।

আরো সহজভাবে বিষয়টি বুঝতে চাইলে নিচে দেওয়া ভিডিওটি দেখতে পারেন।

ভিপিএন এর কাজ কি?

ইন্টারনেট বর্তমানে সহজলভ্য হওয়ায় বিভিন্ন প্রয়োজনে আমরা ইন্টারনেট ব্যবহার করি। শুধু আমরাই নয়, কোটি কোটি মানুষ প্রতিদিন তাদের প্রয়োজনে ইন্টারনেটকে কাজে লাগাচ্ছেন।

তাই ইন্টারনেটে আপনার ডাটা কখনোই নিরাপদ বা গোপনীয় নয়। যেকেনো সময় এটি হ্যাক হতে পারে, ফাঁসও হতে পারে।

আপনি যেই অপারেটরের ইন্টারনেট ব্যবহার করছেন তার কাছে আপনার ডাটা থাকে। তাছাড়া যেই ওয়েবসাইট ভিজিট করেন বা অ্যাপ ব্যবহার করেন তারাও আপনার ডাটা সংগ্রহ করে।

এসব ঝামেলা থেকে বেঁচে থাকার জন্যই ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক বা vpn এর প্রচলন শুরু হয়। VPN ইন্টারনেট জগৎ থেকে আপনার পরিচয় গোপন করে রাখে

এছাড়া কিছু বিশেষ কাজে vpn ব্যবহার করা যায়। সেগুলো সংক্ষেপে তুলে ধরা হলো।

১. আইপি ব্লক হলে

আপনার আইপি কোনো সাইট থেকে ব্লক খুব সহজেই ভিপিএন ব্যবহার করে সেই সাইট ব্রাউজ করতে পারবেন।

এছাড়াও যারা অনলাইনে কাজ করে একাধিকবার বিভিন্ন সাইটে ভিজিটের কারণে আইপি ব্লক হয়ে যেতে পারে। সেক্ষেত্রে ভিপিএন ব্যবহার করে সমস্যার সমাধান করতে পারেন।

২. কোনো সাইটে স্পীড কম পেলে

অনেক সময় কিছু কিছু সার্ভার বাংলাদেশ থেকে ঢুকলে স্পীড কম থাকে সেক্ষেত্রে ভিপিএন আপনাকে সাহায্য করতে পারে।

৩. নিষিদ্ধ সাইট ব্যবহারে

বিভিন্ন দেশে কিছু কিছু ওয়েবসাইট বন্ধ বা ব্যান করা থাকে। সেই দেশের কোনো নেটওয়ার্ক দিতে সেই সাইটগুলোতে ঢোকা যায়না। সেগুলো চাইলে ভিপিএন দিয়ে ভিজিট করা সম্ভব।

তবে অবশ্যই মনে রাখবেন, নিষিদ্ধ সাইট ভিজিট করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। তাই আপনারা এই কাজটি থেকে দূরে থাকুন।

৪. সাময়িক বন্ধ হওয়া সাইট চালাতে

বিভিন্ন সময় সরকার আইনশৃঙ্খলা রুক্ষার ক্ষেত্রে কিছু কিছু সাইট যেমনঃ ফেসবুক, ইউটিউব, টুইটার ইত্যাদি সাময়িক বন্ধ রাখে। এই সময়কালে ভিপিএন দ্বারা সাইটগুলো এক্সেস করা যায়। এটিও একটি অপরাধমূলক কাজ

ভিপিএন দিয়ে ব্লক সাইট চালানোর নিয়ম
ব্লক হওয়া সাইট (ছবিঃ Shahin taj fokir)

বিঃদ্রঃ আইনী ঝামেলা এড়াতে সরকার কোনো সাইট সাময়িক বন্ধ রাখলে সেটিতে না ঢুকাই ভালো

ফ্রি মোবাইল ভিপিএন সফটওয়্যার

বর্তমানে মোবাইল কিংবা পিসিতে খুব সহজেই VPN ব্যবহার করা যায়। এর মধ্যে কিছু vpn ফ্রি এবং কিছু পেইড।

পেইড ভিপিএন এ গোপনীয়তা একটু বেশি থাকে। পছন্দমতো সার্ভার বাছাইয়ের সুযোগ থাকে। সার্ভারগুলো অনেক উন্নতমানের হয়।

পক্ষান্তরে ফ্রি ভিপিএন এ সুযোগ সুবিধা তুলনামূলক কম। ডাটার নিরাপত্তা কিছুটা কম। এছাড়াও সার্ভারগুলো খুব উন্নত হয়না। প্সার্ভার বাছাইয়ের ক্ষেত্রে লিমিটেশন থাকে।

আজকের আর্টিকেলে আমরা মূলত কিছু ফ্রি মোবাইল ভিপিএন সফটওয়্যার বা অ্যাপ এর সাথে আপনাদের পরিচয় করিয়ে দিব। যেই অ্যাপগুলোর মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই আপনার পরিচয় গোপন রেখে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারেন।

বিঃদ্রঃ ইন্টারনেটে সম্পূর্ণভাবে গোপনীয়তা রক্ষা কোনোমতেই সম্ভব নয়

ফ্রি এন্ড্রয়েড ভিপিএন অ্যাপ

বর্তমানে প্লে স্টোরে বিভিন্ন প্রকারে ফ্রি ও পেইড ভিপিএন পাওয়া যায়। এই ফ্রি vpn দিয়ে খুব সহজেই আপনার লোকেশন ও তথ্য গোপন রাখতে পারবেন। প্লে স্টোরের সেরা কিছু ফ্রি ভিপিএন সফটওয়্যার বা সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

ফ্রি ভিপিএন ও ভিপিএন ব্যবহারের নিয়ম

১. Super vpn (সুপার ভিপিএন)

প্লে স্টোর থেকে ব্যাপক ডাউনলোডকৃত ভিপিএন হচ্ছে Super vpn। এটি ফ্রী এবং পেইড দুই ধরণের সার্ভিস দিয়ে থাকে।

super ভিপিএন এ USA, Uk সহ বিভিন্ন দেশের সার্ভার ফ্রীতে ব্যবহার করতে পারবেন।

ডাউনলোডঃ 100M+, রেটিংঃ 4.7

Download Super vpn

২. Turbo vpn (টার্বো ভিপিএন)

প্লে স্টোরে থাকা আরো একটি ব্যাপক জনপ্রিয় ভিপিএন হচ্ছে Turbo vpn। এই ভিপিএনটিরও ফ্রী এবং পেইড ভার্সন পাওয়া। তবে আপনি চাইলে ফ্রি ভার্সন দিয়েই কাজ চালাতে পারেন।

ডাউনলোডঃ 100M+, রেটিংঃ 4.6

Download Turbo vpn

৩. Secure vpn (সিকিউর ভিপিএন)

অসাধারণ জনপ্রিয় আরেকটি ভিপিএন হলো Secure vpn। এই ভিপিএনটিতেও ফ্রী এবং পেইড ভার্সন রয়েছে। আমরা এটি টেস্ট করে যথেষ্ট ফাস্ট স্পীড পেয়েছি।

ডাউনলোডঃ 50M+, রেটিংঃ 4.7

Download secure vpn

৪. Thunder vpn (থান্ডার ভিপিএন)

জনপ্রিয় ও ট্রাস্টেড ভিপিএন এর তালিকায় আরেকটি নাম Thunder vpn ৷ এটি অসাধারণ জনপ্রিয় একটি ভিপিএন অ্যাপ। খুব স্বাচ্ছন্দ্যে এটি ব্যবহার করতে পারেন।

ডাউনলোডঃ 10M+, রেটিংঃ 4.7

Download thunder vpn

৫. Tom vpn (টম ভিপিএন)

আর্টিকেলটি লেখা পর্যন্ত এই vpn টির ডাউনলোড সংখ্যা খুব বেডি না হলেও ইউজার রেটিং যথেষ্ট ভালো। সেই কারণেই এই ভিপিএনটি আমাদের তালিকায় স্থান পেয়েছে। Tom vpn অ্যাপটি আপনিও চাইলে ব্যবহার করে দেখতে পারেন। ব্যবহার করে আপনার মন্তব্য জানাতে ভুলবেন না।

ডাউনলোডঃ 100K+, রেটিংঃ 4.8

Download Tom vpn

৬. Vpn proxy (ভিপিএন প্রক্সি)

Vpn proxy অসাধারণ আরেকটি ভিপিএন। একাধিক সার্ভার সমৃদ্ধ। একই সাথে ইউজার রেটিংও যথেষ্ট ভালো।

ডাউনলোডঃ 10M+, রেটিংঃ 4.6

Download vpn proxy

৭. Snap master vpn (স্ন্যাপ মাস্টার ভিপিএন)

সেরা ভিপিএন হিসেবে যথেষ্ট সুনাম থাকা ভিপিএন হলো Snap master vpn। কিছু কিছু ইউজারের অভিযোগ রয়েছে এটি মাঝেমধ্যে Disconnect হয়ে যায়। যেই বিষয়টি ডেভেলপারদের নজরে আছে।

ডাউনলোডঃ 50M+, রেটিংঃ 4.6

Download snap master vpn

ভিপিএন ব্যবহারের নিয়ম

এবার চলুন ভিপিএন ব্যবহারের নিয়ম জেনে নেওয়া যাক। ভিপিএন ব্যবহার করা খুবই সহজ। প্রথমে vpn অ্যাপটিতে ঢুকতে হবে সেখানে connect নামক অপশন থাকে (অন্য কিছুও থাকতে পারে)। সেখানে ক্লিক করুন।

আপনার কাছে কিছু পারমিশন চাইবে। সেটি allow করে দিন। এরপর ভিপিএন অ্যাপটি নিজে থেকেই আপনার মোবাইলে একটি ইউজার তৈরি করে দিবে। যার মাধ্যমে আপনি ভিপিএ৷ সার্ভারের সাথে কানেক্ট হতে পারবেন।

কিছু কিছু ভিপিএন অ্যাপে একাউন্ট খুলতে হয়। সেক্ষেত্রে অ্যাপে ঢুকে sign up করে নিতে হবে। তারপরই আপনি অ্যাপটি ব্যবহার করতে পারবেন।

ভিপিএন সেটিং

অনেকেই ভিপিএন সেটিং নিয়ে জানতে চান। ভিপিএনে তেমন কোনো কঠিন সেটিং নেই। প্রথমে ভিপিএন কানেক্ট করতে গেলে পারমিশন চাইবে। সেটি অন করে দিতে হবে।

এরপর সার্ভার সিলেক্টের একটা অপশন থাকে। সেখানে অটো কানেক্ট নামক একটা অপশন চালু থাকে। সেটি চালু রাখলে সবচেয়ে ফাস্ট সার্ভারটির সাথে কানেক্ট হবে। এতে আপনি ফাস্ট ব্রাউজ করতে পারবেন।

এছাড়াও আপনি চাইলে নির্দিষ্ট দেশের সার্ভারের সাথ্র কানেক্ট হতে পারেন। সেক্ষেত্রে ঐদেশের নামের উপর ক্লিক করে সিলেক্ট করে নিন। এরপর connect লেখায় ক্লিক করে কানেক্ট করে নিন।

এই গেলো ভিপিএন ব্যবহারের নিয়ম কানুন ও সেরা ভিপিএন অ্যাপের তালিকা। আশা করি, আপনাদের উপকারে আসবে। আপনাদের পরিচিত ভালো কোনো ভিপিএন থাকলে কমেন্ট করে জানাতে পারেন। সবাই ভালো থাকবেন।

Sponsored by TrickBlogBD

বিভিন্ন এক্সক্লুসিভ টিপস & ট্রিক্স পেতে ও মতামত জানাতে আমাদের ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করুন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Scroll to Top