রকেট একাউন্ট খোলার নিয়ম ও ২০ টাকা বোনাস

বাংলাদেশ মোবাইল ব্যাংকিং জগতে ডাচ বাংলা ব্যাংক মোবাইল ব্যাংকিং হচ্ছে প্রথম নাম। যার বর্তমান নাম রকেট। বিকাশের পাশাপাশি অনেকেরই রকেট একাউন্টের প্রয়োজন পড়ে। তাই আজকে আমরা শিখব খুব সহজে রকেট একাউন্ট খোলার নিয়ম কানুন।

বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম ইতিমধ্যেই আমরা জেনেছি। এবার আমরা ধাপে ধাপে কিভাবে রকেট একাউন্ট খুলতে হয় সেই বিষয়ে লিখছি। একই সাথে আপনাদের বোঝার জন্য স্ক্রিনশট ও ভিডিও সংযুক্ত করা হলো।

এ পর্বে আমরা রকেট একাউন্ট খোয়ার ৩ টি প্রক্রিয়া সম্পর্কে জানানোর চেষ্টা করবো।

রকেট কি?

একাউন্ট তো খুলবো। তার আগে সংক্ষেপে রকেট সম্পর্কে কিছু কথা জেনে নেই। রকেট হচ্ছে একটি মোবাইল ব্যাংকিং সেবা অর্থাৎ এখানে মোবাইলের মাধ্যমে আপনি ব্যাংকিং সেবা পাবেন।

মোবাইলের মাধ্যমে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে টাকা লেনদেন করতে পারবেন, কেনাকাটা করতে পারবেন, বিভিন্ন বিল প্রদান করতে পারবেন। এছাড়াও আরো অনেক সুবিধাতো রয়েছেই।

রকেট এর পূর্ব নাম ছিল ডাচ বাংলা ব্যাংক মোবাইল ব্যাংকিং। কিন্তু এটি নাম পরিবর্তন করে বর্তমানে রকেট নামে ব্যবসা পরিচালনা করছে। ডাচ বাংলা ব্যাংক কর্তৃপক্ষ দ্বারা এই মোবাইল ব্যাংকিং সেবা টি পরিচালিত হয়। এটি বাংলাদেশের সর্বপ্রথম মোবাইল ব্যাংকিং সেবা।

তাই আমাদের সকলেরই রকেট একাউন্ট খোলার নিয়ম জানা উচিত। তাহলে আমরা প্রয়োজনের সময় খুব সহজেই রকেটের মাধ্যমে টাকা লেনদেন করতে পারব।

*322# ডায়াল করে প্রি রেজিষ্ট্রেশন

খুব সহজে মোবাইলের মাধ্যমে *322# ডায়াল করে রকেটে রি রেজিষ্ট্রেশন করা যায়। এজন্য নিচের প্রসেসটি ফলো করুন।

  1. প্রথমে *322# ডায়াল করুন।
  2. খালি ঘরে 1 লিখে send করুন।
  3. সর্বশেষ ধাপে আপনার রকেট একাউন্টের জন্য ৪ ডিজিটের একটি পিন কোড লিখুন এবং send করুন।

খুব সহজেই ও ঝামেলা ছাড়াই আপনার প্রি-রেজিষ্ট্রেশন সম্পন্ন হলো। এখন আপনার একাউন্টটি এক্টিভ করতে হলে নিকটস্থ রকেট অনুমোদিত এজেন্ট, ডাজ বাংলা ব্যাংকের ব্রাঞ্চ, ফাস্ট ট্র‍্যাক ইত্যাদিতে গিয়ে একাউন্টটি এক্টিভ করতে হবে।

একাউন্ট এক্টিভ করতে যা যা লাগবে

  1. ১ কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি ও
  2. জাতীয় পরিচয় পত্র/পাসপোর্ট যেকোনো একটার ফটোকপি

এজেন্ট পয়েন্ট থেকে একাউন্ট এক্টিভ

একাউন্ট এক্টিভ করার জন্য উপরে ছবি আর আইডি কার্ড নিয়ে এজেন্ট পয়েন্টে যান। সেখানে আপনাকে KYC নামক একটি ফরম পূরণ করতে হবে।

এজেন্টের সহযোগিতা নিয়ে সেই ফর্মটি পূরণ করুন। ফরম পূরণ করা হলে ৩-৫ দিন অপেক্ষা করুন। এর মধ্যেই আপনার রকেট একাউন্টটি লেনদেন করার জন্য এক্টিভ হয়ে যাবে।

সম্পূর্ন প্রক্রিয়ার ভিডিও

ভিডিও

অ্যাপের মাধ্যমে রকেট একাউন্ট খোলার নিয়ম

সর্বপ্রথম প্লে স্টোর থেকে রকেট অ্যাপটি ডাউনলোড করুন। ডাউনলোড করা হলে অ্যাপটি ওপেন করুন। কিছু পারমিশন চাইবে, আপনি সেই পারমিশন টা allow করে দিন। এরপর আপনার ভাষা নির্বাচন করুন। এক্ষেত্রে আমরা English নির্বাচন করছি। এরপরে Next এ ক্লিক করুন।

পরবর্তীতে পেজে যেই নাম্বারে রকেট একাউন্ট খুলবেন প্রথম বক্সে সেই নাম্বারটি লিখুন। এরপর next এ ক্লিক করুন। পার্মিশন allow করুন।

এরপর একটি পপআপ ওপেন হবে। আপনি যদি নতুন একাউন্ট খুলতে চান সে ক্ষেত্রে yes লেখায় ক্লিক করুন। পরবর্তী পেজের প্রথম ঘরে আপনার মোবাইল নম্বরটি দেখতে পাবেন। মোবাইল নম্বরটি যদি ঠিক থাকে সিলেক্ট অপারেটর ঘরে ক্লিক করুন।

Click yes (রকেট একাউন্ট খোলা)
Click yes

আপনার যে অপারেটর সেটি সিলেক্ট করুন। এক্ষেত্রে রবি, গ্রামীনফোন, বাংলালিংক, টেলিটক আপনার যেই হোক না কেন সে অপারেটর সিলেক্ট করে নিন। এরপর next বাটনে ক্লিক করুন।

Next এ ক্লিক করার পর আপনার মোবাইলে একটি কল আসবে সেই কলটি রিসিভ করুন এবং সেখানে কিপ্যাড এ ক্লিক করে রকেট একাউন্টের জন্য ৪ ডিজিটের একটি পিন কোড ডায়াল করুন।

প্রথমে কী প্যাড বাটনে ক্লিক করুন এবং পরে পিন কোড টাইপ করুন
প্রথমে কী প্যাড বাটনে ক্লিক করুন এবং পরে পিন কোড টাইপ করুন

এই ধাপ সম্পন্ন হলে পরের ধাপ। পরবর্তী ধাপে তিনটি ঘর দেখতে পাবেন। প্রথম ঘরে আপনার ফোন নাম্বার থাকবে। দ্বিতীয় ঘরে একটি সিকিউরিটি কোড এসএমএসে পাবেন সেই কোডটি অটোমেটিকভাবে।দেওয়া থাকবে। যদি আপনার ফোনে অটোমেটিক ভাবে সেই কোডটি না উঠে সে ক্ষেত্রে ম্যাসেজ থেকে পাওয়া কোডটি এখানে লিখে দিন।

তিন নাম্বার ঘর হচ্ছে পিন কোডের ঘর। আপনি কিছুক্ষণ আগে ফোন কলে যে পিন কোডটি সেট করেছিলেন সেই চার ডিজিটের পিন কোড টি এখানে লিখুন এবং ভেরিফাই লেখায় ক্লিক করুন। পারমিশন চাইলে allow করে দিন।

পরবর্তী পেজে আপনার পিন নাম্বারটি টাইপ করে লগইন এ ক্লিক করুন। আপনার অ্যাকাউন্টটি সফলভাবে লগইন হলে একাউন্ট এর উপরের দিকে Update your KYC লেখা দেখতে পাবেন। সেই লেখাটিতে ক্লিক করুন।

Update your KYC for verify your Rocket account
Update your KYC

এরপর রকেটের শর্তাবলী সম্বলিত একটি পেজ দেখতে পাবেন। আপনি চাইলে শর্তাবলী গুলো পড়ে নিতে পারেন। এরপর I agree লেখায় ক্লিক করুন এবং তারপর Next বাটনে ক্লিক করুন।

পরবর্তীতে Take your NID photo নামে একটি পেজ পাবেন। সেই পেজের প্রথম বক্সে আপনার আইডি কার্ডের উপরের অংশের ছবিটি স্ক্যান করুন এবং নিচের দিকের অংশে আইডি কার্ডের পিছনের অংশের পেছনের অংশের ছবিটি স্ক্যান করুন অর্থাৎ ছবি তুলে দিন। ছবি তোলার পারমিশন চাইলে allow করে দিবেন।

আইডি কার্ডের ছবি স্ক্যান করা হলে Next লেখায় ক্লিক করুন। রকেট স্মার্ট অ্যাপটি আপনার আইডি কার্ডে থাকা সকল তথ্য অটোমেটিক ভাবে সংগ্রহ করে নিবে এবং পরবর্তী পেজে আপনি সেই তথ্যগুলো দেখতে পাবেন। একটু সময় নিয়ে তথ্যগুলো আইডি কার্ডের সাথে মিলিয়ে নিন এবং সব ঠিক থাকলে next লেখায় ক্লিক করুন।

আইডি কার্ড স্ক্যান করুন | রকেট একাউন্ট খোলার নিয়ম
আইডি কার্ড স্ক্যান করুন (রকেট একাউন্ট খোলার নিয়ম)

পরবর্তী পেজে আপনাকে কিছু তথ্য দিতে হবে। প্রথম ঘরে Gender অর্থাৎ আপনার লিঙ্গ সিলেক্ট করবেন। এক্ষেত্রে নিচের দেওয়া নিয়মটি অনুসরণ করুন।

  • পুরুষ ফলে Male
  • মহিলা হলে Female অথবা
  • তৃতীয় লিঙ্গের হলে Others লেখায় ক্লিক করুন।

দ্বিতীয় ঘরে আপনার বিবাহের তথ্য দিন। আপনি…

  • অবিবাহিত হলে Single
  • বিবাহিত হলে Married
  • আপনার তালাক হয়ে থাকলে Divorce
  • বিধবা হলে Widow সিলেক্ট করুন।

তৃতীয় ঘরে আপনার ধর্ম সিলেক্ট করুন। চতুর্থ ঘরে করে আপনার পেশা সিলেক্ট করুন। পঞ্চম ঘরে আপনি কি কারণে রকেট একাউন্ট খুলছেন অর্থাৎ আপনি কি ধরনের ট্রানজেকশন করবেন সেই বিষয়ে তথ্য দিন।

এক্ষেত্রে Personal, Business, Savings, salary অথবা Other সিলেক্ট করতে পারেন। এরপর Next লেখায় ক্লিক করুন।

পরবর্তীতে Take customer photo নামে একটি পেজ পাবেন। Next লেখায় ক্লিক করুন। এখানে যার আইডি কার্ড দিয়ে একাউন্ট খুলছেন সেই ব্যক্তির ছবি তুলতে হবে।

Take customer Photo (রকেট একাউন্ট খোলার নিয়ম)
Take customer Photo

এক্ষেত্রে সেলফি স্টাইলে আমরা যেভাবে ছবি তুলি সেভাবে ছবি তোলার ভঙ্গিতে মোবাইল ধরবেন। কয়েকবার আপনার চোখের পলক ফেলবেন। স্মার্ট অ্যাপটি অটোমেটিক আপনার ছবিটি তুলে নেবে। এরপর যদি কোন রকম ভুল হয় Retake লেখায় ক্লিক করে পুনরায় ছবি তুলতে পারবেন। যদি সফল ভাবে ছবি তুলতে পারেন Next লেখায় ক্লিক করুন।

পরবর্তী পেজে আপনার একাউন্টের সকল তথ্য দেখতে পাবেন। সবগুলো তথ্য আপনার এনআইডি কার্ডের সাথে মিলিয়ে নিন এবং কনফার্ম করার জন্য কনফার্ম লেখায় ক্লিক করুন। এরপর পপ-আপ আকারে একটি তথ্য দেখতে পারবেন। এখানে এরকম কিছু একটা লেখা থাকবে যে, আপনার আবেদনটি সফলভাবে জমা দেওয়া হয়েছে এবং ভেরিফিকেশন করার জন্য অপেক্ষমান আছে।

এক্ষেত্রে রকেট কর্তৃপক্ষ আপনার সকল তথ্য যাচাই করবে এবং ভেরিফাই করার পর আপনার একাউন্টটি একটিভ করে দিবে। একাউন্টটি একটিভ হওয়ার পর আপনি এসএমএস এর মাধ্যমে একটি নোটিফিকেশন পাবেন। নোটিফিকেশন পাওয়ার পর থেকে আপনি রকেট একাউন্টের মাধ্যমে যেকোনো ধরনের লেনদেন করতে পারবেন।

এই হলো রকেট একাউন্ট খোলার নিয়ম কানুন। আশা করি, সবাই বুঝতে পেরেছেন। এখন থেকে নিজেই নিজের একাউন্ট খুলতে পারবেন।

যদি কোনো কিছু বুঝতে সমস্যা হয় তাহলে কমেন্ট করতে পারেন। একই সাথে নিজের ভিডিওটি দেখলে আপনি আরো উপকৃত হবেন৷ এই ভিডিওতে সব নিয়মকানুন সম্পূর্ণ দেখানো হয়েছে।

কিভাবে রকেট একাউন্ট খুলতে হয় A-Z

ছবি ও ভিডিওঃ Free Tips 400

রকেট একাউন্ট খুললে বোনাস

হুম, অনেকেই হয়তো জানেন রকেট একাউন্ট খুললে বোনাস পাওয়া যায়। একাউন্ট খোলার সাথে সাথে ২০ টাকা মোবাইল রিচার্জ পৌছে যাবে আপনার নম্বরে।

একটি NID কার্ড দিয়ে কয়টি রকেট একাউন্ট খোলা যাবে?

এটি সবচেয়ে কমন প্রশ্ন যে একটি NID কার্ড দিয়ে কয়টি রকেট একাউন্ট খোলা যাবে? এটির উত্তর খুবই সহজ৷ বিকাশের মতো রকেট একাউন্টেও একটি NID কার্ড দিতে মাত্র একটি একাউন্ট খোলা যাবে।

মূলত সিকিউরিটি মজবুত রাখার জন্যই এই ব্যবস্থা। একাধিক একাউন্ট খোকার সিস্টেম থাকলে মানুষ বিভিন্নভাবে স্পামিংয়ের শিকার হতো। একাউন্ট হ্যাকের মতো সমস্যাও হতে পারে।

একটি NID দিয়ে কয়টি বিকাশ একাউন্ট খোলা যায় শীর্ষক আর্টিকেলে আমরা এই বিষয়টি বিশদভাবে আলোচনা করেছি। সেই আর্টিকেলটি পড়তে আপনি খুব সহজেই বুঝতে পারবেন যে কেন একটি NID কার্ড দিয়ে মাত্র একটি এরকেট একাউন্ট খোলা যায়।

রকেট একাউন্ট বা ব্যালেন্স চেক কোড

রকেট একাউন্ট ব্যালেন্স চেক করার জন্য *322# ডায়াল করুন। এটি রকেটের USSD কোড। এরপর পরবর্তী নির্দেশনা অনুসরণ করুন।

*322# ডায়াল করার পর 5 লিখে সেন্ড করুন। তারপরের ঘরে 1 লিখে সেন্ড করুন। এরপর আপনার ৪ ডিজিটের পিন কোডটি লিখে সেন্ড করুন। পরবর্তী স্ক্রিনে আপনার রকেট একাউন্টের ব্যালেন্স দেখতে পাবেন।

রকেট একাউন্ট খোলার সুবিধা

বর্তমান যুগ তথ্য-প্রযুক্তির যুগ। এখন মানুষ ঘরে বসেই সবকিছু করতে চায়। ছোটখাটো কাজের জন্য মানুষ ঘর থেকে বের হতে চায়না। সেজন্যই এখন মোবাইল ব্যাংকিং ব্যাপক জনপ্রিয়। রকেটও তার ব্যাতিক্রম নয়।

অন্যান্য মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মতো রকেট একাউন্টেও আপনি কিছু সুযোগ-সুবিধা পাবেন। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য বিষয়গুলো নিচে তুলে ধরা হলো।

  • একাউন্ট খোলা যথেষ্ঠ সহজ ও কম সময় স্বাপেক্ষ।
  • যেকোনো জায়গা থেকে টাকা পাঠাতে ও উঠাতে পারবেন।
  • যেকোনো অপারেটরের সিমেই একাউন্ট খোলা যায়।
  • যেকোনো সময় মোবাইলে রিচার্জ করার করার সুবিধা।
  • বিভিন্ন বিল প্রদানের সুবিধা।
  • বেতন ভাতা গ্রহণ করা সম্ভব।
  • কয়েক ক্লিকে শ্রমিকদের বেতন দেওয়া।
  • বিদেশ থেকে রেমিটেন্স গ্রহণ।
  • অনলাইনে কেনাকাটার পেমেন্ট দেওয়া।
  • ডিজিটাল ব্যাংকিং সেবা।
  • বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ
  • পানির বিল পরিশোধ।
  • টাকা সঞ্চয় করতে পারবেন সহজেই।
  • উপবৃত্তির টাকা উত্তোলন ইত্যাদি।

উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলো ছাড়াও রকেট একাউন্ট দিয়ে আপনি আরো অনেক কাজ করতে পারবেন। তাই আজই ডাচ বাংলা ব্যাংকের রকেট একাউন্ট খুলে নিন।

রকেট একাউন্ট নাম্বার

রকেট গ্রাহকদের সিকিউরিটির জন্য প্রদত্ত মোবাইলের সাথে একটি নতুন ডিজিট যুক্ত করে একাউন্ট নম্বর প্রদান করে। অর্থাৎ আপনার ফোন নম্বর ১১ ডিজিটের হলেও রকেট একাউন্ট নাম্বার ১২ ডিজিটের হয়।

রকেট হেল্পলাইন নম্বর

একাউন্টতো খোলা শেষ। কিন্তু আপনি বিভিন্ন সময় একাউন্ট সম্পর্কিত বিভিন্ন সমস্যায় পড়তে পারেন। তাই সেটির সমাধানও করা দরকার। কিন্তু কিভাবে?

হুম, ভাই এটি খুব কঠিন কিছু না। আপনি খুব সহজেই রকেটের হেল্পলাইন নম্বর 16216 এ কল করে যেকোনো সমস্যার সমাধান পেতে পারেন।

কোনো সমস্যায় পড়লে হেল্পলাইন নম্বরে কল দিন। কাস্টমার কেয়ার ম্যানেজার আপনার কলটি রিসিভ করবেন। তাকে আপনার সমস্যার বিস্তারিত বলুন। তিনি সেই অনুযায়ী আপনার সমস্যাটি সমাধান করে দিবেন অথবা সমাধানের উপায় বলে দিবেন।

এই পোস্ট সম্পর্কে কোনো প্রশ্ন, অভিযোগ, মতামত বা পরামর্শ থাকলে নিচে কমেন্ট করুন। আমরা সকল কমেন্টের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করি। সকল আপডেট সবার আগে পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন। আর টুইটারে ফলো করুন।

Leave a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.