ব্যাংক এশিয়া একাউন্ট খোলার নিয়ম | ডিপিএস, কারেন্ট ও FDR

বেসরকারি ব্যাংকের মধ্যে ব্যাংক এশিয়া যথেষ্ট জনপ্রিয় একটি ব্যাংক। কাস্টমার সার্ভিস ও বিভিন্ন ধরণের DPS, FDR, Loan ইত্যাদির সুযোগ-সুবিধা পাওয়ার জন্য ব্যাংক এশিয়া একাউন্ট খুলতে হয়। তাই আজকের আর্টিকেলে ব্যাংক এশিয়া একাউন্ট খোলার নিয়ম কানুন বিস্তারিত জানানো হবে। সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়বেন।

এই আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়লে ব্যাংক এশিয়াতে কিভাবে একাউন্ট খুলতে হয়, সুবিধা-অসুবিধা কি?, লাভ কেমন ইত্যাদি সম্পর্কে ভালোভাবে জানতে পারবেন।

ব্যাংক এশিয়া একাউন্ট খোলার নিয়ম

ব্যাংক এশিয়া একাউন্টের ধরণ

বিভিন্ন প্রকারের একাউন্টের মধ্যে কিছু কমন একাউন্ট বেশিরভাগ গ্রাহকই ব্যবহার করেন। সেগুলো হলোঃ

  1. সেভিংস একাউন্ট
  2. কারেন্ট একাউন্ট
  3. ফিক্সড ডিপোজিট

ব্যাংকের শাখায়, এজেন্ট পয়েন্টে ও অনলাইনে একাউন্ট খোলা যায়

ব্যাংক এশিয়া সেভিংস একাউন্ট

যেকোনো ব্যাংকের ক্ষেত্রে সেভিংস একাউন্ট সর্বাধিক জনপ্রিয় একটি ব্যাংকিং সেবা। ব্যাংক এশিয়া তার ব্যতিক্রম নয়। সেভিংস একাউন্টে বিভিন্ন সুবিধা রয়েছে। প্রথমত এই ধরণের একাউন্টে টাকা রাখার উপর মুনাফা পাওয়া যায়। একইসাথে একাউন্ট খোলাও খুব সহজ।

সেভিংস একাউন্ট খোলার নিয়ম

আগেই বলেছি, ব্যাংক এশিয়া সেভিংস বা ডিপিএস একাউন্ট খোলা খুবই সহজ। এজন্য আপনার কিছু প্রয়োজনীয় কাগজপত্র লাগবে।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

  • একাউন্ট খোলার ফরম।
  • একাউন্ট হোল্ডার ও নমিনির পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
  • একাউন্ট হোল্ডার ও নমিনির এনআইডি কার্ড / পাসপোর্ট / ড্রাইভিং লাইসেন্স।
  • TIN সার্টিফিকেট।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সাথে নিয়ে ব্যাংকের যেকোনো শাখা বা অনুমোদিত এজেন্ট পয়েন্টে গেলেই দায়িত্বরত কর্মকর্তা আপনাকে একাউন্ট খোলার ব্যাপারে সহায়তা করবে।

কর্মকর্তা আপনার হয়ে সকল ফরম পূরণ করে দিবে। কিছু কিছু পাতায় আপনার স্বাক্ষরের দরকার হবে। সেগুলো দিন। একাউন্ট খুলতে ২০-৩০ মিনিট সময় লাগতে পারে

বিঃদ্রঃ নমিনি সাথে না গেলেও চলবে

সেভিংস একাউন্টের সুবিধা

সেভিংস একাউন্টের বিভিন্ন সুবিধা পাওয়া যায়। একাউন্টে রাখা টাকা অনুযায়ী নির্দিষ্ট হারে মুনাফা তো পাবেন। একই সাথে আরো কিছু সুবিধা থাকছে। সেগুলো হলোঃ

  • চেক বই।
  • সেফ লকার সুবিধা।
  • রেমিটেন্স গ্রহণ।
  • ফান্ড ট্রান্সফার।
  • sms ব্যাংকিং।
  • ইন্টারনেট ব্যাংকিং।
  • ATM কার্ড সুবিধা ইত্যাদি।

সেভিংস একাউন্টের মুনাফার পরিমাণ

Avg. Balance below Tk. 1 Lac2.50%
Avg. Balance Tk. 1 Lac & above but below Tk. 1.00 Crore2.50%
Avg. Balance Tk. 1.00 Crore and above2.50%

ব্যাংক এশিয়া কারেন্ট একাউন্ট

আরেকটি ব্যাপক জনপ্রিয় একাউন্ট হচ্ছে কারেন্ট একাউন্ট। কারেন্ট একাউন্ট মূলত নন ইন্টারেস্ট বেজ্ড ব্যাংক একাউন্ট। এই একাউন্টে মূলত লাভ দেওয়া হয়না।

যাদের প্রচুর পরিমাণে লেনদেন হয় যেমনঃ ব্যবসায়ী তারা কারেন্ট একাউন্ট খুলে থাকেন। কারেন্ট একাউন্টে একাউন্টে ডিপোজিট ও উইথড্র করার সুবিধা থাকে

কারেন্ট একাউন্ট খোলার নিয়ম

নিচে দেওয়া প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সাথে করে নিয়ে গেলে ব্যাংকের কর্মকর্তারাই একাউন্ট খোলার সব কাজ করে দিবে। কিছু কিছু পেজে স্বাক্ষর করার দরকার হবে। আপনি শুধু দেখে স্বাক্ষরটা দিয়ে দিবেন।

  • একাউন্ট খোলার ফরম।
  • একাউন্ট হোল্ডার ও নমিনির পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
  • একাউন্ট হোল্ডার ও নমিনির এনআইডি কার্ড / পাসপোর্ট / ড্রাইভিং লাইসেন্স।
  • TIN সার্টিফিকেট।
  • ট্রেড লাইসেন্স।
  • ঠিকানার প্রমাণ যেমনঃ ইউটিলিটি বিলের কপি।

কারেন্ট একাউন্টের সুবিধা

কারেন্ট একাউন্টের বিশেষ সুবিধা হচ্ছে খুব বেশি পরিমাণে ট্রান্সেকশন করা যায়। এছাড়াও আরো সুবিধাগুলো হলোঃ

  • চেক বই।
  • সেফ লকার সুবিধা।
  • রেমিটেন্স গ্রহণ।
  • ফান্ড ট্রান্সফার।
  • sms ব্যাংকিং।
  • ইন্টারনেট ব্যাংকিং।
  • ATM কার্ড সুবিধা ইত্যাদি।

FDR বা ফিক্সড ডিপোজিট

ব্যাংক এশিয়ায় আপনার একটি সেভিংস একাউন্ট থাকলেই FDR একাউন্ট খোলা যায়। এজন্য ব্যাংকে গেলেই তারা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন।

ব্যাংক একাউন্ট মুনাফা

এই একাউন্টের সুবিধা হচ্ছে ফিক্সড এমাউন্টে মুনাফা পাবেন। টাকার পরিমাণ অনুসারে যেকোনো একাউন্টের মুনাফার হার জেনে নিতে পারেন।

আরেকটি কথা, FDR করার পর আপনাকে একটি কার্ড দেওয়া হবে। পরবর্তীতে FDR ভাঙাতে এই কার্ডটি লাগবে।

ব্যাংক এশিয়া একাউন্ট চেক

একাউন্ট চেক করা খুবই সহজ। ব্যাংকে গিয়ে কর্মকর্তার মাধ্যমে একাউন্ট চেক করতে পারবেন। অনেক সময় ফোন করেও একাউন্ট চেক করা যায়। সিকিউরিটির কারণে ফোন করলে অনেক সময় তথ্য দেওয়া হয়না।

সবচেয়ে সহজ উপায় হলো ইন্টারনেট ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে ব্যাংক এশিয়ার অ্যাপ দিয়ে খুব সহজেই একাউন্ট চেক করতে পারবেন। ইন্টারনেট ব্যাংকিং সম্পর্কে নিচে বিস্তারিত তুলে ধরা হলো।

আরো পড়ুনঃ ইসলামী ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম

একাউন্টের চেক বই কিভাবে পাবেন?

সাধারণত একাউন্ট খোলার সপ্তাহখানেকের মধ্যে চেক বই দেওয়া হয়। এজন্য একাউন্ট খোলার সময় কর্মকর্তার সাথে এ ব্যাপারে কথা বলে নিবেন। তিনি আপনাকে এ ব্যাপারে সহায়তা করবেন।

চেক বই আসলে একাউন্ট খোলার সময় দেওয়া নম্বরে একটি ম্যাসেজ আসবে। তখন ব্যাংকের আবার ঐ একই শাখায় গিয়ে চেক বইটি গ্রহণ করতে হবে।

ব্যাংক এশিয়া ইন্টারনেট ব্যাংকিং

স্মার্ট ও ডিজিটাল ব্যাংকিংয়ের অংশ হিসেবে ব্যাংক এশিয়াতেও ইন্টারনেট ব্যাংকিংয়ের সুবিধা রয়েছে। ইন্টারনেট ব্যাংকিং সুবিধা পাওয়ার জন্য আপনার একটি ইমেইল একাউন্ট থাকতে হবে

ব্যাংক কর্মকর্তাকে ইন্টারনেট ব্যাংকিং চালু করার কথা জানাতে হবে। তিনি একটি এপ্লিকেশনে আপনার স্বাক্ষর দিতে বলবেন। সেখানে আপনার ইমেইল এড্রেস ও স্বাক্ষর লাগবে।

সাধারণত একদিনের মধ্যেই ব্যাংকের হেড অফিস থেকে আপনার একাউন্ট নিশ্চিত করা হবে। এই সম্পর্কে নির্দেশনা দিয়ে আপনাকে একটি মেইল করা হবে।

সেবাটি ব্যবহার করার জন্য Bank asia smart app টি প্লে স্টোর বা অ্যাপ স্টোর থেকে ডাউনলোড করে নিন।

বিঃদ্রঃ প্রযুক্তিগত জ্ঞান না থাকলে ইন্টারনেট ব্যাংকিং না খোলাই ভালো

ইন্টারনেট ব্যাংকিংয়ের সুবিধা

ইন্টারনেট ব্যাংকিংয়ের কিছু বিশেষ সুবিধা রয়েছে। এক নজরে সেগুলো জেনে নেওয়া যাক।

  • দিনে ২৪ ঘন্টা ও সপ্তাহে ৭ দিন এই সার্ভিস ব্যবহার করা যায়।
  • মোবাইল রিচার্জ করতে পারবেন।
  • যেকোনো সময় ফান্ড ট্রান্সফার করা যায়।
  • মোবাইল ব্যাংকিং যেমনঃ বিকাশ, নগদ, উপায় ইত্যাদিতে টাকা তোলা যায়।
  • একাউন্ট চেক করা যায়।
  • যেকোনো সময়ের ট্রান্সেকশন চেক করা যায় ইত্যাদি।

শেষ কথা

সব ব্যাংকেই একাউন্ট খোলার নিয়ম প্রায় একই। আমরা ব্যাংক এশিয়া একাউন্ট খোলার নিয়ম ও এ সম্পর্কিত বিভিন্ন তথ্য তুলে ধরলাম। আশা করি উপকৃত হয়েছেন। প্রত্যেকটি পোস্টে আপনাদের মন্তব্য একান্তভাবে কাম্য।

Sponsored by TrickBlogBD

ফ্রী মোবাইল রিচার্জ, বিভিন্ন এক্সক্লুসিভ টিপস & ট্রিক্স পেতে ও মতামত জানাতে আমাদের ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করুন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Scroll to Top